টাইমলাইনভারতরাজনীতি

বিদ্রোহী বিধায়কদের জন্য গুয়াহাটির হোটেলে ৭ দিনের জন্য ৭০টি রুম বুক, জানেন খরচ কত?

বাংলাহান্ট ডেস্ক : একনাথ শিন্ডে মহারাষ্ট্র ছেড়েছেন। সঙ্গে নিয়ে গেছেন ৪২ জন বিদ্রোহী বিধায়ককেও। প্রথমে এই বিদ্রোহী দল উপস্থিত হন গুজারাটের সুরাটে। পরে সুরাট ছেড়ে একেবারে ঠেলে গিয়ে ওঠেন আর এক বিজেপি শাসিত রাজ্য অসমে। আপাতত সেখানেই দলবল নিয়ে ঘাঁটি গেড়েছেন তিনি। আছেন গুয়াহাটির বিলাসবহুল রোডিসল ব্লু হোটেলে। এই হোটেল এখন তাঁদের সদর দফতর। এই হোটেল থেকেই যাবতীয় ছবি, ভিডিও, ঘোষণা প্রচার করা হচ্ছে। কিন্তু পাঁচ তারা এই বিলাসবহুল হোটেলে ৪০ এর থেকেও বেশি বিধায়কের প্রত্যক দিনের খরচ বহন করছে কে?

বিশেষ সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে, রোডিসল ব্লু হোটেলে ৭ দিনের জন্য মোট ৭০ টি ঘর ভাড়া নেওয়া হয়েছে। খরচ হয়েছে প্রায় ৫৬ লক্ষ টাকা। এছাড়া প্রতিদিনের খাবার এবং অন্যান্য জিনিসের জন্য খরচ হচ্ছে প্রায় চার লক্ষ টাকা। হোটেলের খরচ ছাড়াও রয়েছে চাটার্ড প্লেন এবং যাতায়াতের খরচও। যদিও এই খরচ কতো সেটা এখনও সামনে আসেনি। এছাড়া প্রতিনিয়তই বাড়ছে বিধায়কের সংখ্যাও।

বিশেষ সূত্রে খবর, এই মুহুর্তে বিদ্রোহী বিধায়কের সংখ্যা ৫০ ছাড়িয়ে। তারই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে খরচও। এই বিদ্রোহী বিধায়কদের দাবি এনসিপি এবং কংগ্রেসের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে। অনেকেরই দাবি বিজেপির সঙ্গে জোট করে গড়তে হবে সরকার। যেভাবে ৭ দিনের জন্য পাঁচ তারা হোটেলের ঘর ভাড়া নেওয়া হয়েছে তাতে এটা পরিষ্কার যে বিদ্রোহী বিধায়করা লম্বা লড়াইয়ের জন্যই মাঠে নেমেছে। এত সহজে তারা মাথা নামাবে না।

জানা যাচ্ছে, রোডিসন হোটেলে মোট ১৯৬ টি বিলাসবহুল ঘর রয়েছে। তার মধ্যে ৭০ টি ঘর ভাড়া নিয়েছে বিদ্রোহী বিধায়ক দল। যদিও হোটেল কতৃপক্ষ এই হোটেল ভাড়া নেওয়ার কথা স্বীকার করতে নারাজ। এছাড়া যারা আগে থেকে হোটেলের ঘর ভাড়া করেছিলেন তাদেরও ভাড়া বাতিল করে দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ব্যঙ্কোয়েট হলও। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে হোটেলের ভিতরে থাকা রেস্তোরাঁও। যাঁরা ওই হোটেলে প্রথম থেকেই আছেন শুধু তাঁদের জন্যই খোলা সুবিধাগুলি। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে এই বিরাট অংকের খরচের টাকা জোগাচ্ছে কে? তার কোনও সদুত্তর এখনও পাওয়া যায়নি।

Related Articles

Back to top button