টাইমলাইনভারত

বিয়ের ৫৪ বছর পর হল স্বপ্নপূরণ! সন্তানের জন্ম দিলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধা

বাংলা হান্ট ডেস্ক: বিয়ে হয়েছিল সেই ৫৪ বছর আগে! কিন্তু, সন্তানসুখ থেকে বঞ্চিত ছিলেন দম্পতি। এমতাবস্থায়, জীবনের অনেকটা পথ পাড়ি দেওয়ার পরেই হল স্বপ্নপূরণ! ৭০ বছর বয়সেও সমস্ত প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে সন্তানের জন্ম দিলেন বৃদ্ধা। এই বিরল নজির সামনে এসেছে রাজস্থানের (Rajasthan) আলওয়ার জেলা থেকে। জানা গিয়েছে, ওই মহিলার স্বামীর বয়স হল ৭৫ বছর।

এমতাবস্থায়, প্রায় ৫৪ বছর আগে ওই দম্পতির বিয়ে হয়েছিল। যদিও, তাঁরা সন্তানলাভ থেকে বঞ্চিত ছিলেন। কিন্তু, দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর IVF (In vitro fertilization)-এর কৌশলের মাধ্যমে তাঁদের সংসারে এসেছে একরত্তি। স্বাভাবিকভাবেই, এই ঘটনায় আনন্দের সীমা নেই ওই দম্পতির। তবে, চিকিৎসকরা জানিয়েছেন যে, এই বয়সে ওই মহিলার গর্ভবতী হওয়ার কারণে অনেক আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল। যদিও, শেষ পর্যন্ত সবকিছু ঠিক হয়ে গেছে।

এই প্রসঙ্গে আলওয়ারের ইন্দো আইভিএফ টেস্ট টিউব বেবি সেন্টারের সায়েন্টিফিক ডাইরেক্টর এবং এমব্রায়োলজিস্ট ডাঃ পঙ্কজ গুপ্ত জানিয়েছেন, চন্দ্রাবতী এবং গোপী সিং ঝুনঝুনু জেলার সিঙ্গানা গ্রামের বাসিন্দা। চন্দ্রাবতীর দেবী বয়স প্রায় ৭০ এবং গোপী সিংহের বয়স ৭৫ বছর। বিয়ের পর সন্তান না হওয়ায় অসুখী এই দম্পতি অনেক জায়গায় চিকিৎসার শরণাপন্ন হলেও তাঁরা সন্তানসুখ থেকে কার্যত বঞ্চিত ছিলেন।

অনেক ধরণের আশঙ্কা ছিল: জানা গিয়েছে, প্রায় দেড় বছর আগে চন্দ্রাবতী দেবী তাঁর আত্মীয়ের মাধ্যমে ওই সেন্টারে যান। এরপর সেখানেই তাঁর চিকিৎসা শুরু হয়। এমতাবস্থায়, চন্দ্রাবতী দেবী গত ৯ মাস আগে IVF প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তৃতীয় প্রচেষ্টায় গর্ভবতী হতে সক্ষম হন। এদিকে, প্রচেষ্টা সফল হলেও ৯ মাস গর্ভধারণের পর এত বেশি বয়সে সুষ্ঠুভাবে প্রসব সম্ভব হবে কি না সেই বিষয়ে আশঙ্কায় ছিলেন সবাই। কিন্তু অবশেষে গত সোমবার চন্দ্রাবতী দেবী জন্ম দেন সন্তানের। পাশাপাশি, এখন শিশুটি সুস্থ রয়েছে।

নতুন আইনটি ২০২২ সালের জুন থেকে কার্যকর হয়েছে: এই প্রসঙ্গে ডাঃ পঙ্কজ গুপ্ত জানিয়েছেন, ২০২১ সালের ডিসেম্বর এবং ২০২২ সালের জানুয়ারিতে ভারতের সংসদ কর্তৃক একটি আইন পাশ হয়েছিল। যেটি ২০২২ সালের জুন থেকে কার্যকর হয়েছে। তাঁর মতে, এখন কোনো IVF বন্ধ্যাত্ব কেন্দ্র ৫০ বছরের বেশি বয়সী মহিলা ও পুরুষদের চিকিৎসা দিতে পারবে না। তবে এই দম্পতির ভাগ্য ভালো যে এই আইন কার্যকর হওয়ার কিছুদিন আগেই তাঁরা এই প্রক্রিয়ার মধ্যে এসে পড়েন। আর সেই কারণেই, এই বয়সে এসেও তাঁরা বাবা-মা হতে পেরেছেন।

গোপী সিং ৪০ বছর আগে অবসর নিয়েছেন: জানা গিয়েছে গোপী সিং হলেন একজন অবসরপ্রাপ্ত সৈনিক। সেনাবাহিনী থেকে অবসর নেওয়ার পর ইতিমধ্যেই ৪০ বছর অতিক্রান্ত হয়ে গিয়েছে তাঁর। বাংলাদেশ যুদ্ধে গোপী সিং গুলিবিদ্ধও হন। এমতাবস্থায়, বিয়ের প্রায় সাড়ে পাঁচ দশক পর এখন তাঁর ঘরে “প্রদীপ” জ্বলছে। জেনে অবাক হবেন যে, চন্দ্রাবতী দেবীর সিজারিয়ান পদ্ধতিতে অপারেশন করা ডাক্তার কর্নেল রীনা যাদবও একজন সৈনিক।

Related Articles