টাইমলাইনবিনোদন

‘পরমসুন্দরী’র জন‍্য নষ্ট হয়ে গিয়েছে জীবন! অনুরাগীর কাছে ক্ষমা চাইলেন কৃতি শানন

বাংলাহান্ট ডেস্ক: আট থেকে অশি, বুড়ো থেকে জোয়ান, এমন কেউই হয়তো বাকি নেই যে ‘পরমসুন্দরী’র (param sundari) তালে অন্তত একবার হলেও নাচেননি। এ আর রহমানের সুরে শ্রেয়া ঘোষালের গাওয়া ‘মিমি’ ছবির এই গান নাচিয়েছে গোটা দেশকে। কৃতি শাননের (kriti sanon) ট্রেডমার্ক নাচের স্টেপটিও তুমুল জনপ্রিয় হয়েছিল।

কিন্তু এই গানের জন‍্যই যে কারোর জীবন তছনছ হয়ে যেতে পারে তা কি নির্মাতারা কখনো ভেবেছিলেন? অথচ বাস্তবেই এমনটা ঘটেছে। তেমনটাই অভিযোগ তুলে স্বয়ং কৃতি শাননকে কাঠগড়ায় তুলেছেন ভুক্তভোগী এক যুবক। এই ভাইরাল গানের জন‍্য নাকি তাঁর সর্বনাশ হয়ে গিয়েছে!


টুইট করে কৃতিকে অভিযোগ করেছেন তিনি, তবে সবটাই মজার ছলে। যুবকের নাম পরম ছায়া। গানের জন‍্য তাঁর ঠিক কী ধরনের সমস‍্যা হতে পারে তা আশা করি বুঝেই গিয়েছেন। টুইটে যুবক লিখেছেন, ‘ছোটবেলায় স্কুলে কোনো কিছুই আমার বিরক্তির কারণ হতে পারত না। আমার নাম বা পদবী নিয়ে কেউ মজা করলেও আমি রাগ করতাম না। কিন্তু যখন থেকে কৃতি শাননের পরমসুন্দরী এসেছে, অন্তত ১০০০ বার গানটা নিয়ে আমার সঙ্গে মজা করা হয়েছে। কেন এমনটা করলেন কৃতি শানন? আমার জীবনটা কেন নষ্ট করলেন?’

তবে টুইটটি যে তিনি মজা করেই করেছেন তা হাসির ইমোজি দেখেই বোঝা গিয়েছে। এমন মজার টুইট দেখে উত্তর না দিয়ে থাকতে পারেননি কৃতিও। একগুচ্ছ হাসির ইমোজি দিয়ে তাঁর স্বীকারোক্তি, “এ বাবা!! দুঃখিত!” সঙ্গে মুখে হাত চাপা দেওয়ার ইমোজি। অভিনেত্রীর থেকে উত্তর পেয়ে আপ্লুত যুবক। বললেন, এতে ক্ষতি অনেকটাই কমবে।

তবে একা এই যুবক নন। টলিউডের অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ‍্যায়ও কম নাকাল হননি ‘পরমসুন্দরী’র জন‍্য। গানের সঙ্গে তাঁর নামের মিল থাকায় অনেকেই ট‍্যাগ করেছিলেন অভিনেতাকে। তবে বিষয়টা বেশ মজার ছলেই নিয়েছেন পরমব্রত। গানটির জনপ্রিয়তাকে উপভোগ করেছেন তিনিও।

Related Articles

Back to top button