টাইমলাইনভারতভাইরাল

প্রকাশ্য দিবালোকে যৌন হেনস্থার চেষ্টা, অভিযুক্তের স্কুটি তুলে নর্দমায় ফেলে দিলেন তরুণী

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ প্রকাশ্য দিনের আলোয় যৌন হেনস্থার একের পর এক দৃশ্য এর আগেও দেখেছে ভারত। ফের তেমনি এক ঘটনা সামনে এল আসামের গুয়াহাটি থেকে। যদিও এবার আর মুখ বুজে হেনস্থা সহ্য করেননি তরুণী। বরং প্রতিবাদে রীতিমত স্তম্ভিত করে দিয়েছেন প্রতিপক্ষকে। ইতিমধ্যেই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে গুয়াহাটি থানার পুলিশ।

জানা গিয়েছে, ভাবনা কাশ্যপ নামের ওই তরুণীর অভিযোগ গুয়াহাটির এক জনবহুল রাস্তা দিয়ে যাবার সময় স্কুটি নিয়ে আসা এক যুবক, তার কাছে জানতে চায়, সিনকি যাবার রাস্তা কোনদিকে। প্রথমে ভিড়ের মধ্যে তার কথা শুনতে পাননি তিনি। কিন্তু ফের সামনে এসে তরুণীকে একই কথা জিজ্ঞেস করে ওই যুবক। তখন স্বাভাবিকভাবেই তরুণী বলেন, তিনি জানেন না অন্য কাউকে জিজ্ঞেস করুন ওই যুবক।

ভাবনার অভিযোগ অনুযায়ী, এর পরেই কার্যত চড়াও হয় ওই তরুণ। আচমকা তার সমস্ত রাগ এবং ক্ষোভ নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে সে৷ অভিযোগ তার ওপর যৌন আক্রমণও করা হয়। প্রথম একটু হতবাক হয়ে পড়লেও তারপরেই রুখে দাঁড়ান তিনি। স্পিড বাড়িয়ে চলে যেতে চাইলেও স্কুটির পিছনের চাকা টেনে ধরেন ভাবনা। তারপর টেনে-হিঁচড়ে স্কুটিটিকে নামিয়ে দেন নর্দমায়। ভাবনা বলেন, “আমি এক মুহূর্ত ভাবিনি। সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে পরিস্থিতির মোকাবিলা করি। ও যখন স্কুটির স্পিড বাড়াতে চায় আমি তখনই পিছনের চাকা তুলে ধরি। ওকে রীতিমতো টেনে-হিঁচড়ে ড্রেনে গিয়ে ফেলি।”

ঘটনার কথা নিজেই ফেসবুকে প্রকাশ করেছিলেন তরুণী। আর তারপরেই ওই যুবককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, পাঞ্জাবাড়ি এলাকায় ওই যুবকের নাম মধুসানা রাজকুমার। ভাবনা নিজের ফেসবুক পোস্টে আরও লেখেন,”আমি বলতে চাই কোন মেয়েকেই একা পেয়ে রাস্তায় হেনস্থা করা যায় না। এই ধরনের অসুস্থ মানসিকতার লোকজনের বিরুদ্ধে, মহিলাদের নিরাপত্তার দাবিতে সমাজকেও গলা তুলতে হবে, দায়িত্ব নিতে হবে। এসব অসুস্থ মানুষদের জন্য প্রতিদিন যেন কোন নির্ভয়ার জন্ম না হয় এদেশে।”

 

Related Articles

Back to top button