টাইমলাইনবিনোদন

শ্বেতাকে চিঠি লিখতেন আমির, অভিনেতাকে একবার দেখার জন‍্য দেড় ঘন্টা গাড়ি চালিয়ে গিয়েছিলেন অমিতাভ-কন‍্যা

বাংলাহান্ট ডেস্ক: বচ্চন পরিবারের প্রায় সকলেই ফিল্মি দুনিয়ায় কেরিয়ার বানালেন অমিতাভ বচ্চন (amitabh bachchan) কন‍্যা শ্বেতা বচ্চন নন্দা (shweta bachchan nanda) চিরদিনই নিজেকে ছবির জগৎ থেকে দূরে রেখেছেন। বাবা অমিতাভের সঙ্গে কয়েকটি বিজ্ঞাপনে মুখ দেখানো ছাড়া কখনোই ক‍্যামেরার সামনে বা পেছনে দেখা যায়নি তাঁকে।

তবে কয়েক বছর আগে করন জোহরের টক শো ‘কফি উইথ করন’এ ভাই অভিষেক বচ্চনের সঙ্গে এসেছিলেন শ্বেতা। সেখানেই কার্যত সবার সামনে দিদির হাটে হাঁড়ি ভাঙেন অভিষেক। তিনি জানান, সলমন খান ও আমির খানের (aamir khan) নাকি খুব বড় অনুরাগী ছিলেন শ্বেতা। এমনকি আমির নাকি এক সময় চিঠিও লিখতেন শ্বেতাকে।


আসলে স্কুলে পড়ার সময় আমির খানের নাকি খুব বড় ভক্ত ছিলেন অমিতাভ কন‍্যা। সে কথা জানতে পেরেই শ্বেতার প্রতি বছরের জন্মদিনে একটি করে চিঠি নিজে হাতে লিখে তাঁকে পাঠাতেন আমির। আসলে আমিরের জন্মদিন ১৪ মার্চের তিনদিন পর ১৭ মার্চেই শ্বেতার জন্মদিন হওয়ায় মনে করে ঠিক চিঠি পাঠাতেন অভিনেতা।

আমিরের প্রেমে এতটাই পাগল ছিলেন শ্বেতা যে বস্টনে তাঁর লাইভ শো দেখার জন‍্য ভাই অভিষেককে দিয়ে লিম‍্যুজিন ভাড়া করিয়ে ছিলেন। দেড় ঘন্টা গাড়ি চালিয়ে শ্বেতাকে সেই শো দেখাতে নিয়ে গিয়েছিলেন অভিষেক।


তবে শুধু আমিরই নয়, সলমনেরও ভক্ত ছিলেন শ্বেতা। সময়টা ১৯৮৯। সবে সবে মুক্তি পেয়েছে ‘ম‍্যায়নে পেয়ার কিয়া’। সেই ছবি লন্ডনে বোর্ডিং স্কুলে পড়ার সময় দেখেছিলেন শ্বেতা। সিনেমা দেখা বোর্ডিংয়ের নিয়ম বহির্ভূত হওয়ায় পুরোটা রেকর্ড করে শুনেছিলেন বলেও জানান তিনি।

এরপরেই সলমনের মতো ‘Friend’ লেখা ছবি ভাই অভিষেককে কিনে দেওয়ার আবদার করেন শ্বেতা। সেই সময় লন্ডনে তেমন টুপি পাওয়া যেত না। তাই দিদির জন‍্য মুম্বই থেকে টুপি কিনে নিয়ে গিয়েছিলেন অভিষেক।

Back to top button