টাইমলাইনভারতভাইরাল

কোভিশিল্ড টিকা নেওয়ার পর গায়ে আটকে যাবে যেকোনো লোহার জিনিস? ভাইরাল ভিডিও

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ পৃথিবীতে কত অদ্ভুত ঘটনা ঘটে, যা হয়তো নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাস্যই মনে হয় না। এবার এমনই একটি ঘটনা সামনে এলো করোনার ভ্যাকসিনেশনকে কেন্দ্র করে। করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে ইতিমধ্যেই নানা ধরনের খবর রটেছে দেশ-বিদেশে। এমনকি তার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়েও চলেছে নানা ধরনের গবেষণা। তবে এবার যে ঘটনাটি সামনে এলো তার কথা হয়তো কল্পনাই করতে পারেননি কোন চিকিৎসক। কোভিড ভ্যাকসিন নেওয়ার পর চৌম্বকত্বের শক্তি লাভ করলেন এক ব্যক্তি। ভাবতে অবাক লাগলেও, প্রাথমিক তদন্ত অনুযায়ী ঘটনাটি একেবারেই সত্যি।

সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত একটি রিপোর্টে জানানো হয়েছে ঘটনাটি ঘটেছে মহারাষ্ট্রের নাসিক জেলায়। পরিবারের দাবি কোভিশিল্ডের দুটি ডোজ নেওয়ার পর চৌম্বকত্বের শক্তি লাভ করেছেন অরবিন্দ সোনার নামে এক ব্যক্তি। এখন যে কোন লোহার জিনিস তার গায়ে আটকে যাচ্ছে চুম্বকের মতই। প্রথমেই ঘটনাটিকে বিশেষ পাত্তা দেয়নি পরিবার। ভ্যাকসিন নিয়ে আসার পর বিছানায় ঘুমোচ্ছিলেন ওই ব্যক্তি। হঠাৎ দেখা যায় তার কাঁধে একটি কয়েন আটকে গিয়েছে। তারা ভেবেছিলেন হয়তো বা ঘামের কারণে গায়ে লেগে গিয়েছে ওই কয়েনটি। কিন্তু তারপর কয়েনটিকে ছাড়াতে গিয়েই বোঝা যায় সেটি আটকে রয়েছে বেশ শক্ত ভাবে অনেকটা চুম্বুকের গায়ে যেভাবে লোহা লেগে থাকে।

এমনকি স্নান করার পরেও তা আপনা থেকে খুলে পড়ছে না। শুধু কয়েন নয়, কখনও ছোট বড় চামচ, কখনও স্টিলের তৈরি কোন জিনিস সবকিছুকেই নিজের গায়ে ঠিক চুম্বকের মতই আটকে নিতে পারছেন এই ব্যক্তি। ঘটনার সত্যতা প্রমাণ করতে ইতিমধ্যেই একটি ভিডিও জারি করা হয়েছে ওই পরিবারের পক্ষ থেকে। নাসিকের শিবাজী চক এলাকার বাসিন্দা অরবিন্দ জগন্নাথ সোনার কোভিশিল্ডের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছিলেন ২ জুন। তারপর থেকেই তার মধ্যে এই বিশেষ ক্ষমতা বিকশিত হয়েছে বলে দাবি করে পরিবার।

তার পুত্র জয়ন্ত জানান, “আমি প্রথম এই ঘটনাটা লক্ষ্য করি। হঠাৎ দেখলাম কিছু কয়েন বাবার কাঁধে লেগে আছে। প্রথম আমি ভেবেছিলাম যে সম্ভবত তিনি ঘুমাচ্ছেন এবং যখন তিনি জেগেছিলেন, তখন অবশ্যই ঘামের কারণে বিছানায় পড়ে থাকা কয়েনগুলিতে আটকে গিয়ে থাকবে। কিছু সময় পরে তিনি আরও কিছু জিনিস আটকালেন, তারপরে আমাদের ধারণা বদলাতে শুরু করে।”

এ বিষয়ে ইতিমধ্যেই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ টোপ। তিনি জানান ঘটনাটির সত্যতা কি তা যাচাই করে দেখা প্রয়োজন। এর পিছনে সত্যিই ভ্যাকসিনের কোন হাত রয়েছে কিনা, তা জানা দরকার। সেই কারণেই তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এমন ঘটনা যে বাস্তব হতে পারে তা হয়তো ভাবতে পারেননি কেউই। তবে যতক্ষণ না তদন্তের রিপোর্ট সামনে আসছে ততক্ষণ সঠিকভাবে কিছুই বলা সম্ভব নয়।

Related Articles

Back to top button