fbpx
টাইমলাইনভারত

স্ত্রীকে তিন তালাক দিয়ে হালালার নামে তান্ত্রিকের হাতে তুলে দিলো স্বামী! এরপর চলল একাধিক বার ধর্ষণ

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ ভোপালে (bhopal) তিন তালাক (Triple talaq) আর তারপর হালালার (halala) নামে এক মুসলিম মহিলার উপর অত্যাচারের কাহিনী সামনে এসেছে। মহিলার অভিযোগের পর পুলিশ তিন তালাক দেওয়া তাঁর স্বামী আর হালালার নামে তাঁকে ধর্ষণ করা পীর আনওয়ার খানের বিরুদ্ধে পণ, ধর্ষণ (rape) আর মুসলিম মহিলা সংরক্ষণ আইনের মাধ্যমে মামলা দায়ের করেছে। মহিলার অভিযোগ ওই পীর চারদিন পর্যন্ত নিজের সাথে রেখে ধর্ষণ করেছে।

তিন তালাক আইনের পর ভোপালে তালাক আর হালালার নামে ধর্ষণণের এটাই প্রথম মামলা। নির্যাতিতা মহিলার অভিযোগে তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে মুসলিম মহিলা বিবাহ সংরক্ষণ অধিনিয়ম ২০১৯ এর ৪ নম্বর ধারা অনুযায়ী মামলা দায়ের করা হয়েছে। মহিলা তাঁর স্বামী আর পীরের বিরুদ্ধে এশাবাগ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে, মহিলা জানিয়েছেন তাঁর স্বামী তাঁকে তিনবার তালাক বলে তাঁকে হালালার নামে আনোয়ারের হাতে তুলে দেয়। এই তান্ত্রিক তাঁর নিকাহ এর সাক্ষ মানে নিকাহর আব্বা। এরপর ওই পীর মহিলাকে চারদিন ধরে ধর্ষণ করে।

প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ২২ বছরের যুবতী এই বছরের ২৯ এপ্রিল বিয়ে হয়েছিল। মহিলা অনুযায়ী, শ্বশুর বাড়ির এক তান্ত্রিক আনোয়ার খান বিয়ের পর থেকেই ওই যুবতীর উপরে কুনজর দিচ্ছিল। সে বাড়িতে কেউ না থাকলে বারবার আসত। আর ওই যুবতীর সাথে অশ্লীল কার্যকলাপ করত। মহিলা এই কথা তাঁর স্বামীকে জানায়, কিন্তু তাঁর স্বামী এই কথা বিশ্বাস করেনি। তান্ত্রিক আনোয়ারের এই কার্যকলাপের পর ওই যুবতী বিয়ের একমাস পর স্বামীর থেকে আলাদা থাকার সিদ্ধান্ত নেয়। তাও তান্ত্রিক তাঁর পিছু ছারেনি। আর এই নিয়ে মাঝে মাঝেই স্বামী আর স্ত্রীর মধ্যে বিবাদ হত।

নির্যাতিতা অনুযায়ী, তান্ত্রিকের কারণে স্বামী – স্ত্রীর মাধ্যমে বিতর্ক চলায় গত মাসের ২৩ নভেম্বর স্বামী তাঁকে তিন তালাক দিয়ে দেয়। এরপর রাজিনামার জন্য হালালার নামে তাঁর স্বামী অভিযুক্ত তান্ত্রিকের হাতে তুলে দেয়।

Back to top button
Close
Close