টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

‘মুখ্যমন্ত্রী মাথা নত করেছেন’, মমতা-শুভেন্দু সাক্ষাৎ ইস্যুতে বিস্ফোরক টুইট অমিত মালব্যর

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ এদিন বিধানসভার অধিবেশন শেষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) এবং বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর (Suvendu Adhikari) সাক্ষাৎ ঘিরে ইতিমধ্যেই তোলপাড় বঙ্গ রাজনীতি। একদিকে যখন একের পর এক ইস্যুকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কংগ্রেস (Trinamool Congress) এবং মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে চলেছে বিরোধী দলনেতা, সেই মুহূর্তে দাঁড়িয়ে এই সাক্ষাৎ ঘিরে জল্পনা তুঙ্গে আর এর মাঝেই এবার এই ইস্যুতে বিতর্কিত টুইট করে বসলেন বিজেপি (BJP) নেতা অমিত মালব্য (Amit Malviya)।

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে নিয়োগ সংক্রান্ত দুর্নীতির পাশাপাশি অন্যান্য একাধিক বিষয়কে কেন্দ্র করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বনাম শুভেন্দু অধিকারী দ্বন্দ্ব চরমে। তৃণমূল কংগ্রেস নেতা মন্ত্রীদের উদ্দেশ্য করে বিভিন্ন সময় একের পর এক আক্রমণ করে চলেছেন বিরোধী দলনেতা আর এর মাঝে এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পৌঁছে যান শুভেন্দু অধিকারী, মনোজ টিগ্গা এবং অগ্নিমিত্রা পাল, যা ঘিরে ইতিমধ্যেই সরগরম হয়ে উঠেছে বঙ্গ রাজনীতি। অবশেষে মমতা-শুভেন্দু সৌজন্য সাক্ষাৎ ঘিরে বিতর্কিত টুইট করলেন বিজেপি নেতা অমিত মালব্য।

এদিন বিজেপি নেতা লেখেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যে অহংকার ছিল, তা বর্তমানে ধুলোয় মিশেছে। উনি বুঝতে পারছেন যে, গণতান্ত্রিকভাবে কখনোই বিজেপিকে হারানো সম্ভব নয়। সেই কারণে মাথা নত করে শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। অতীতেও শুভেন্দু অধিকারী বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে নন্দীগ্রাম বিধানসভা নির্বাচনে পরাজিত করেছিলেন।” ফলে সব মিলিয়ে অমিত মাল্য বুঝিয়ে দিলেন, তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে কোনোরকম সমঝোতার পথে হাঁটতে চাইছে না বিজেপি।

উল্লেখ্য, এদিন ‘সংবিধান দিবস’ পালিত হয়েছে বিধানসভায়। পাশাপাশি নতুন ভবনের উদ্বোধন। কিন্তু সেই অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে নাম নেই বিরোধী দলনেতার, এই অভিযোগ তুলে অনুষ্ঠান বয়কট করেন শুভেন্দু। এরপরই মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে নিজের ঘরে ডেকে পাঠান। পরবর্তীতে সেখানে পৌঁছে যান শুভেন্দু, মনোজ টিগ্গা, অগ্নিমিত্রা পালরা।

পরে বেরিয়ে এসে বিরোধী দলনেতা বলেন, “ওঁর ঘরে ডেকেছিলেন। সৌজন্য বিনিময় হল। যদিও চা খাওয়া আর হয়নি।” অগ্নিমিত্রা জানান, “সিএম বসেছিলেন, সৌজন্য বিনিময় করলাম।” অপর দিকে মুখ্যমন্ত্রী জানান, “চা খেতে ডেকেছিলাম।”

Related Articles