টাইমলাইনআন্তর্জাতিক

আমরা কখনই বলিনি যে প্রকাশ্যে আসা নাম পেগাসাসের লিস্টে রয়েছে! ভোল বদল অ্যামনেস্টির?

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ দ্য গার্জিয়ান আর ওয়াশিংটন পোস্ট সমেত ১৬টি মিডিয়া সংস্থার সংযুক্ত তদন্তের পর করা দাবিতে পেগাসাস (Pegasus) সফটওয়্যারের মাধ্যমে গোয়েন্দাগিরি করানোর ইস্যু উঠতেই ভারতের রাজনীতিতে তুমুল হাঙ্গামার সৃষ্টি হয়েছে। আর এরই মধ্যে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশানাল (Amnesty International) নিজেদের করা দাবি নিয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে। যেখানে তাঁরা বলেছিল, NSO-র ফোন রেকর্ড করার প্রমাণ তাঁদের হাতে এসেছে, যেটা তাঁরা ভারত সমেত গোটা বিশ্বের বিভিন্ন মিডিয়া সংস্থার সঙ্গে তাঁরা শেয়ার করেছে।

ইজরায়েলি মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশানাল এখন বলছে ‘তাঁরা কখনও এটা বলেনি যে, এই তালিকা NSO-র সঙ্গে যুক্ত। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশানাল কখনও ওই লিস্টকে ‘NSO পেগাসাস স্পাইওয়্যার তালিকা” হিসেবে পেশ করেনি। বিশ্বের কয়েকটি মিডিয়া সংস্থা এরকম করেছে। এই তালিকাটি সংস্থার গ্রাহকদের স্বার্থের পরিচায়ক মাত্র।”

অ্যামনেস্টি জানিয়েছে যে, ‘ওই লিস্টে তাঁদের নাম রয়েছে, যাদের গোয়েন্দাগিরি করার জন্য NSO-র গ্রাহকদের আগ্রহ রয়েছে। তালিকায় ওরকম কোনও নামই নেই, NSO যাদের উপর গোয়েন্দাগিরি চালিয়েছে।” রিপোর্ট অনুযায়ী, ‘অ্যামনেস্টি জানিয়েছে যে, যেসমস্ত তদন্তকারী সাংবাদিক আর মিডিয়া আউটলেটের সঙ্গে তাঁরা কাজ করে, তাঁদের প্রথমেই এটা স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল যে, এই তালিকায় গ্রাহকদের স্বার্থের পরিচায়ক।” পরিস্কার ভাষায় বলতে গেলে, এর মানে হল … ওই লিস্টে তাঁদেরই নাম আছে যারা এনএসও-র গ্রাহক হতে পারে বা যারা নজরদারিরে আগ্রহী।

https://twitter.com/ShivAroor/status/1418098289451233280

ফ্রান্সের একটি নন প্রফিট সংস্থা ফরবিডেন স্টোরিজ আর অ্যামনেস্টির দাবি ছিল যে, তাঁরা মানবিক স্বাধীনতা আর নাগরিক সমাজের সহায়তার জন্য গম্ভীর হুমকির সন্ধান করে সেগুলির উত্তর খোঁজে। আর এই কারণেই তাঁরা পেগাসাস স্পাইওয়্যারের ফরেনসিক বিশ্লেষণ করেছে।

অ্যামনেস্টির ইন্টারন্যাশানাল অনুযায়ী, তাঁদের সিকিউরিটি ল্যাব বিশ্বের অনেক মানবাধিকার কর্মী আর সাংবাদিকদের বিভিন্ন মোবাইল উপকরণের গঠন আর ফরেনসিক বিশ্লেষণ করেছে। এই গবেষণায় এটা জানা গিয়েছে যে, এনএসও গ্রুপ পেগাসাস স্পাইওয়্যারের মাধ্যমে মাবাধিকার কর্মী আর সাংবাদিকদের অবৈধ ভাবে গোয়েন্দাগিরি চালিয়েছে। ফরবিডেন স্টোরিজ আর অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যশানাল এনএসও-র ফোন রেকর্ডের তথ্য হাতে পেয়েছে, যেটা তাঁরা ভারত সমেই গোটা বিশ্বের বিভিন্ন মিডিয়া সংগঠনের সঙ্গে শেয়ার করেছে।

Back to top button