টাইমলাইনবিনোদন

কলকাতা ঘুরে ফুচকা-আইসক্রিম খাওয়া, প্রথমবার ট্রামে চড়া! লক্ষ্মীপুজোতেই দূর্গাপুজোর আমেজ পেলেন অন্বেষা

বাংলাহান্ট ডেস্ক: দূর্গাপুজো মিটে গিয়েছে, সদ‍্য শেষ হল লক্ষ্মীপুজোও। এখন কালীপুজোর অপেক্ষায় হা পিত‍্যেশ করে বসে রয়েছে বাঙালি। এদিকে অভিনেত্রী অন্বেষা হাজরার (annwesha hazra) এখনো দূর্গাপুজোর পঞ্চমীই শেষ হয়নি! অন্বেষাকে আসল নামের বদলে ঊর্মি নাম বললেই বেশি মানুষ চিনবেন। ‘এই পথ যদি না শেষ হয়’ এর দৌলতে অন্বেষা এখন ঘরে ঘরের চেনা মুখ।

তবে আজ সিরিয়াল নিয়ে কিন্তু কিন্তু কথা হচ্ছে না। আজ কথা হচ্ছে ব‍্যক্তি অন্বেষাকে নিয়েই। বাস্তবেই এখনো পঞ্চমীতে পড়ে আছেন তিনি। আরো স্পষ্ট ভাবে বলতে গেলে কোজাগরী লক্ষ্মীপুজোর দিনেই দূর্গাপুজোর পঞ্চমীর আনন্দ পেয়েছেন অন্বেষা, সৌজন‍্যে অভিনেত্রী শ্রুতি দাস।


শ্রুতি ও অন্বেষার বন্ধুত্বের কথা টেলিপাড়ায় কারোর অজানা নয়। সোশ‍্যাল মিডিয়ায় ছবির মাধ‍্যমে তো বটেই, শ্রুতির ইউটিউব ভ্লগ চ‍্যানেলেও একাধিক বার দেখা মিলেছে অন্বেষার। লক্ষ্মীপুজোর দিন শ্রুতি ও তাঁর পরিবারের সঙ্গেই কলকাতা ঘুরে পঞ্চমীর আমেজ খুঁজে পেলেন পর্দার ঊর্মি।

ঘুরঘুর, ফুচকা খাওয়ার পাশাপাশি এই প্রথম বার ট্রামেও চড়লেন অন্বেষা। সোশ‍্যাল মিডিয়ায় ছবি শেয়ার করে মনের আবেগ উজাড় করে দিয়েছেন তিনি। লিখেছেন, ‘শুধু মাত্র তোমাদের জন্য। আজকের তারিখটা বাঁধিয়ে রাখার মতন, ২০শে অক্টোবর ২০২১। একদিনের ছুটিতে বাড়ি যেতে পারিনি ঠিকই কিন্তু আজ যেখানে সব্বাই লক্ষ্মী পুজো নিয়ে ব্যস্ত সেখানে আমরা চার জন “দূর্গা পুজোর পঞ্চমী” সেলিব্রেট করেছি।

কী! অদ্ভুত শুনতে লাগছে তো? স্বাভাবিক, আমি তো আমার মনের অবস্থা জানাচ্ছি। কলকাতা তে ঘুরে ঘুরে হাঁটা, ফুচকা খাওয়া, আইসক্রিম খাওয়া, আর তার পর “ট্রাম এ চাপা”। হ্যাঁ অমি এই প্রথম ট্রামে চাপলাম। আমার কাছে কোনও শব্দ নেই বলে বোঝানোর মতন আমি কী ফিল করছি। আমি যে আজ কি পেয়েছি আমি নিজেও ভাবতে পারছি না। আমার লক্ষ্মী পুজো কে তোমরাই দুর্গা পুজো করেছো।’

এবারে লক্ষ্মীপুজোয় বাড়ি যেতে পারেননি অন্বেষা। তাঁর নিজের বাড়ি বর্ধমানের মেমারিতে। কিন্তু আসলে মেমারি থেকে আরেকটু ভেতরে ধানখেরু গ্রামে অন্বেষাদের জমিদার বাড়িতে হয় পুজো। দূর্গাপুজোও জাঁকজমক করে হয় সেখানেই। প্রায় ২০০ বছরের পুরনো তাঁদের বাড়ি। প্রত‍্যেক বছর দূর্গাপুজো উপলক্ষে নিজের গ্রামের বাড়িতে যান অন্বেষা। পরিবার পরিজন, আত্মীয় স্বজনদের নিয়ে হইহই করে পুজো কাটান সেখানেই।

Related Articles

Back to top button