টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতিকলকাতা

ফাঁস লেগেই মৃত্য অর্জুন চৌরাসিয়ার, খুনের জল্পনা উড়িয়ে সামনে এল ময়নাতদন্তের রিপোর্ট

বাংলাহান্ট ডেস্ক : চিৎপুরের বিজেপির যুব নেতা অর্জুন চৌরাসিয়ার রহস্যমৃত্যু মামলায় এল বড় মোড়। এবার হাতে এল ময়নাতদন্তের রিপোর্ট। সেই রিপোর্টে উল্লেখ করা তথ্য অনুযায়ী, খুন করার পর ঝুলিয়ে দেওয়া হয়নি ওই যুব নেতার দেহ। বরং গলায় ফাঁস লাগার কারণেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর। আলিপুর কমান্ড হাসপাতালে করা এই ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এদিন পেশ করা হয় কলকাতা হাইকোর্টে।

দিন চারেক আগে ওই বিজেপি নেতার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারকে ঘিরে তোলপাড় হয় রাজ্য রাজনীতি। মামলা গড়ায় হাইকোর্ট অবধি। এই রহস্যমৃত্য খুন নাকি আত্মহত্যা না নিয়েও শুরু হয় শাসক-বিরোধী দুই শিবিরের চাপানউতোর। এই মামলার তদন্তে সিট গঠনের নির্দেশ আগেই দিয়েছিল হাইকোর্ট। এবার সামনে এল ময়নাতদন্তের রিপোর্ট।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সকালে চিৎপুর এলাকার রেল কোয়ার্টার থেকে উদ্ধার করা হয় অর্জুন চৌরাসিয়ার ঝুলন্ত মৃতদেহ। অর্জুন এলাকায় সক্রিয় বিজেপি কর্মী বলেই পরিচিত ছিলেন। এমনকি কলকাতা পুরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের যুব মোর্চার সহ সভাপতিও ছিলেন তিনি।

পরিবার সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যে নাগাদ জরুরি কাজে যাচ্ছেন বলে বাড়ি থেকে বের হন অর্জুন। কিন্তু সন্ধ্যে গড়িয়ে মাঝরাত হলেও বাড়ি ফেরেননি তিনি। ফোনেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি যুবকের সঙ্গে। এরপরই সম্ভাব্য সমস্ত জায়গায় খোঁজখবর নিতে থাকে পরিবার। কিন্তু কোথাও না মেলায় শুক্রবার সকালেই থানায় মিসিং ডায়রি করার কথা ভেবেছিল পরিবার। তার আগেই বাড়ির পাশের রেল কোয়ার্টারের নীচের তলার একটি ঘর থেকে উদ্ধার হয় বিজেপি কর্মীর দেহ। স্থানীয় বাসিন্দারা শুক্রবার সকালে হঠাৎই দেখেন ওই ঘরের মধ্যে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় ঝুলছে অর্জুন চৌরাসিয়ার দেহটি। তৎক্ষনাৎ খবর দেওয়া হয় পুলিশে। এবার হাতে এল সেই ময়নাতদন্তের রিপোর্টই। এই রিপোর্টের পর আরও পোক্ত হচ্ছে আত্মহত্যার জল্পনাই। যদিও সেই দাবি মানতে মোটেই রাজি নয় বিজেপি। অর্জুন চৌরাসিয়ার মৃত্যু মামলায় সিবিআই তদন্তের দাবিতে সরব বিরোধী শিবির।

Related Articles

Back to top button