টাইমলাইনখেলাক্রিকেটIPL

IPL-এ অনন্য এক রেকর্ড গড়লেন আশীষ নেহেরা, এমন রেকর্ড গড়া প্রথম ভারতীয় হলেন তিনি

বাংলা হান্ট নিউজ ডেস্ক: আইপিএল ২০২২-এ নিজেদের অভিষেক মরশুমেই সর্বোচ্চ সাফল্য পেয়েছে নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি গুজরাট টাইটান্স। দলে সেই অর্থে কোহলি, রোহিত বা ওয়ার্নারের মতো কোনও মহাতারকা ছিল না। টিমগেম খেলেই এই সাফল্য পেয়েছে নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজিটি। তাই বলা যায় এই সাফল্যের পিছনে কোচিং স্টাফদের একটি বড় ভূমিকা ছিল। আইপিএলের এই নতুন দলের প্রধান কোচিংয়ের দায়িত্ব পালন করেছে আশিস নেহেরা। খেলোয়াড় হিসেবে তিনি একাধিক মনে রাখার মতো পারফরম্যান্স করেছেন আশিস নেহেরা, কিন্তু প্রধান কোচ হিসেবে এবার একটি বিশেষ কীর্তি গড়লেন তিনি।

কোচ আশিস নেহরা এবং অধিনায়ক হার্দিক পান্ডিয়ার জুটি গুজরাটের জন্য দারুণ কার্যকরী প্রমাণিত হয়েছে। অধিনায়ক হিসেবে নিজের প্রথম আইপিএল মরশুমে বাজিমাত করেছেন হার্দিকও। এর আগে বোলিং কোচের দায়িত্ব পালন করলেও প্রধান কোচ হিসেবে আশিস নেহরার জন্য এটি প্রথম আইপিএল ছিল। তিনি সাহায্য পেয়েছিলেন ভারতকে বিশ্বকাপ জেতানো প্রবাদপ্রতিম কোচ গ্যারি কার্স্টেনের সাহায্য। তবে প্রথম ভারতীয় প্রধান কোচ হিসেবে আশিস নেহরা আইপিএলের আশীষ নেহেরা এই মরশুমে আইপিএল ট্রফি জিতেছেন। তার আগে এই কীর্তি কেউ গড়ে দেখাতে পারেননি।

ম্যাচের কথা বলতে গেলে প্রথমে ব্যাট করতে নামা রাজস্থান দলের যশস্বী, বাটলার এবং স্যামসনের আউট হওয়ায় পর থেকে এবং পাওয়ার প্লে শেষ হওয়ার পর থেকে একবারের জন্যও রাজস্থানের বাকি ব্যাটারদের শান্তিতে নিঃশ্বাস নিতে দেননি রশিদ খানরা। বল হাতে টুর্নামেন্টে আজ নিজের সেরা পারফরম্যান্সটা করলেন গুজরাট অধিনায়ক হার্দিক পান্ডিয়া। ৪ ওভার হাত ঘুরিয়ে মাত্র ১৭ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন তিনি। ২টি উইকেট নেন সাই কিশোর। দুর্দান্ত বোলিং করে ১টি করে উইকেট পেয়েছেন রশিদ খান এবং যশ দয়াল। কিছুটা রান খরচ করলেও ১ উইকেট পেয়েছেন মহম্মদ শামিও। রাজস্থানের হয়ে সর্বোচ্চ রান করেছেন বাটলার। ৩৯ রান করেছেন অরেঞ্জ ক্যাপ জয়ী তারকা। গুজরাট নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৩০ রানের বেশি তুলতে পারেনি।

রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা নড়বড়ে করেছিল গুজরাট টাইটান্স। তাড়াতাড়ি ফিরে যান ঋদ্ধিমান সাহা ও ম্যাথু ওয়েড। বোল্টের বলে গিলের ক্যাচ ধরতে ব্যর্থ হন চাহাল। কিন্তু এরপর শুভমান গিল এবং হার্দিক পান্ডিয়ার ৬৩ রানের পার্টনারশিপ ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ করে দিয়েছিল। হার্দিক আউট হওয়ার পর ১৯ বলে ৩টি চার ও ১টি ছয় সহযোগে ৩২ রান করে ম্যাচ শেষ করে দেন ডেভিড মিলার। শুভমান গিল অপরাজিত থাকেন ৪৩ বলে ৪৫ রান করে।

Related Articles

Back to top button