টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

বাংলা হান্ট এক্সক্লুসিভঃ তৃণমূল নেতার বাড়িতে বিস্ফোরণ নিয়ে বড় বয়ান অশোক দিন্দার

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ নির্বাচনের পর ফের একবার উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে ময়না। এক তৃণমূল কর্মী-সমর্থকের বাড়িতে বোমা মজুত রাখাকে কেন্দ্র করে রীতিমতো উত্তাল হয়ে উঠেছে পরিস্থিতি। কারন সন্ধ্যাবেলায় হঠাৎই বিস্ফোরণে উড়ে যায় বাড়ির দেওয়াল। কোন হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও বাচকা এলাকার বাসিন্দা সুনীল মন্ডলের বাড়িতে কিভাবে বোমা মজুত হলো তা নিয়েই উঠেছে প্রশ্ন। এবার এই প্রসঙ্গে বাংলা হান্ট-এর কাছে সরাসরি মুখ খুললেন এলাকার বিধায়ক অশোক দিন্দা। শুধু এই বিস্ফোরণ প্রসঙ্গ নয় দলবদল এবং পুনর্গণনা সম্পর্কের এদিন নিজের খোলামেলা মন্তব্য প্রকাশ করেন তিনি।

এলাকার তৃণমূল সভাপতির অভিযোগ ছিল বোমা রেখেছে বিজেপিই। অভিযোগের উত্তরে তিনি বলেন, “উনি বলতে চাইছেন তৃণমূল কর্মীর বাড়ির সিন্দুকে গিয়ে বোমা রেখে আসছে বিজেপির লোক। সবাই কি ঘাসে মুখ দিয়ে চলে?এভাবে কথা বললে মানুষ যা বোঝার তা বুঝে নেবে। তৃণমূল কর্মীর পাকা বাড়ি, বিভিন্ন জায়গায় গ্রিল দেওয়া। যেখানে একটা পাখিও হয়তো ঢুকতে পারবে না। সেখানে প্রায় একশোরও বেশি কাঁচা বোমা মজুত করা সম্ভব? গ্রামবাসীরা তো অনেকে এও বলছেন অনেক পিস্তল রাখা ছিল ওই বাড়িতে, যা পরে নদীর পাড় দিয়ে নিয়ে পালানো হয়। যদিও এই ঘটনা আমি খতিয়ে দেখে নি। ”

এদিন তিনি এও জানান তৃণমূল নেতাদের এ ধরনের কথার কোন ভিত্তি নেই। তিনি এও বলেন, ” এটা সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্র। সবাই জানে বিজেপি জিতেছে বাচকার জন্য। আমার তো সন্দেহ বিভিন্ন জায়গায় ওরা বোমা রেখেছে। সেকথা আমি পুলিশকে জানিয়েছি। বোম স্কোয়ার্ডকেও আসার জন্য অনুরোধ করেছি। পুরো এলাকাতেই তদন্ত করা উচিত আরও কোন কোন বাড়িতে বোমা রাখা হয়েছে। ওরা বিভিন্নভাবে চেষ্টা করছে বাচকাকে শায়েস্তা করার জন্য। ২০১৮ সাল থেকে একটা এলাকায় প্রায় ২৫০০ কেস। এ ধরনের কেসের কোন মূল্য নেই আমি মনে করি।”

শুধু তাই নয় ময়না এলাকার ক্ষেত্রে তৃণমূল ভ্যাকসিন নিয়েও দুর্নীতি করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। তিনি বলেন, “কিছুদিন আগেই রাজ্যে হকারদের জন্য টিকাকরণের একটা ব্যবস্থা হয়েছিল। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তা পেয়েছে তৃণমূল কর্মীদের পরিবার।যদি ২৫% হকার টিকা পেয়ে থাকে। তাহলে ৭৫% ক্ষেত্রেই তা পেয়েছে তৃণমূল কর্মীরা। এ নিয়ে আমি ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে মেইল করেছি। আমার লক্ষ্য ৩ লক্ষ ময়নার মানুষ প্রত্যেকে যেন সঠিক ভাবে ভ্যাকসিন পান। ”

একইসঙ্গে এদিন দলবদল নিয়েও মুখ খোলেন ময়নার বিধায়ক অশোক দিন্দা। তিনি বলেন, “যারা দলবদল করছে তারা পার্টিকে কতটা ভালোবাসে তা নিয়ে সন্দেহ আছে। তারা বোঝে ক্ষমতা। তবে একদিন মানুষ তাদের মন থেকে মুছে ফেলবে। ”

এই মুহূর্তে রাজ্য রাজনীতিতে অত্যন্ত জ্বলন্ত ইস্যু ভোটের পুনর্গণনা। ইতিমধ্যেই তা নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছে তৃণমূল। যার মধ্যে রয়েছে ময়নার আসনটিও। তৃণমূল প্রার্থী সংগ্রাম কুমার দোলুই এখানে পুনর্গণনার দাবি তুলেছেন। এদিন সে প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে অশোক বলেন, “আমি কাউন্টিং রুমে সারাক্ষণ ছিলাম। একমুহূর্তও বাইরে যাইনি। কোন রকমের দুর্নীতির কোনো প্রশ্নই ওঠে না। প্রথমদিকে আমি হারছিলাম, আমাকে বলা হয়েছিল আপনি চলে যান। যে কোন মুহূর্তে আপনার উপরে আক্রমণ হতে পারে। তবে আমি ক্রিকেটার আর সেই কারণেই বলেছি হার হোক জিতবো বিরোধীপক্ষের সাথে হাত মিলিয়ে তবেই মাঠ ছাড়বো। চারটে পনেরোর সময় আমাকে জয়ী ঘোষণা করার পরেও রাত একটা পাঁচে আমি সার্টিফিকেট হাতে পাই। তখন থেকেই পুনর্গণনার দাবি তুলেছিলেন তারা। এমনকি আড়াইশো বাতিল ব্যালট পেপারও ফের পরীক্ষা করা হয়। তবে শেষ পর্যন্ত কোনো লাভ হয়নি।”

 

Related Articles

Back to top button