টাইমলাইনফুটবলখেলা

এটিকে মোহনবাগানে যোগ দিলেন পোগবা, উচ্ছ্বসিত সবুজ-মেরুন ভক্তরা

বাংলা হান্ট নিউজ ডেস্ক: তারকা ফ্রেঞ্চ ফুটবলার পল পোগবা যে ম্যান ইউনাইটেড ছেড়েছেন সেই খবর সেই খবর সকলেই জানতেন। তার পরবর্তী গন্তব্য কী সেটা জানার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন ফুটবলপ্রেমীরা। সকলকে চমকে দিয়ে কাল রাতের দিকে একটি খবর আসে যাতে আশ্চর্য হয়ে যান ভারতীয় ফুটবলপ্রেমীরা। রেড ডেভিলদের দুর্গ ছেড়ে এবার নাকি এটিকে মোহনবাগানের সই করতে চলেছেন পোগবা। এমন উত্তেজিত করে তোলে ভারতীয় ফুটবলপ্রেমীদের। কিন্তু না, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছাড়ার পর পল পোগবা যোগ দিয়েছেন নিজের পুরনো ক্লাব ইতালির জুভেন্টাসে। এটিকে মোহনবাগানের তিনি আসছেন তিনি হলেন পল পোগবার দাদা ফ্লোরেন্টিন পোগবা।

কিন্তু কে এই ফ্লোরেন্টিন পোগবা? আচমকা তাকেই কেন আনতে গেল এটিকে মোহনবাগান ম্যানেজমেন্ট? কোন পজিশনে খেলেন তিনি? তিনি কি তাঁর ভাইয়ের মতই একজন দক্ষ ফুটবলার? এমন হাজারো প্রশ্ন রয়েছে মোহনবাগান ভক্তদের মনে। সেই সকল প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গেলে দেখা যাবে নিঃসন্দেহে ফ্লোরেন্টিন নিজের ভাই পল পগবার মতো তারকা ফুটবলার নন তবে তিনি যে পর্যায়ে খেলে এসেছেন, ভারতীয় ফুটবলের গুণমানের দিক দিয়ে বিচার করলে তা রীতিমত আকর্ষণীয়। শনিবার সকালেই তার আসার কথা ঘোষণা করে দিয়েছে এটিকে মোহনবাগান ম্যানেজমেন্ট।

পল পোগবা জন্মের কিছু বছর পর থেকেই ফ্রান্সের নাগরিকত্ব নিয়ে ফ্রেঞ্চ ফুটবল দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্যে পরিণত হলেও তার দাদা ফ্লোরেন্টিন এখনো তাদের জন্মভূমি গুয়েনা-র অধিবাসী এবং সেই দেশের জাতীয় দলের হয়ে ১১ বছরে ১১টি ম্যাচও খেলেছেন তিনি। লিভারপুলের তারকা ফুটবলার নবি কেইতা, ভ্যালেন্সিয়ার ইয়াক্স মোরিবাদের মতো ফুটবলারদের সাথে দেশের জার্সি গায়ে নেমেছেন ফ্লোরেন্টিন। এছাড়া তিনি ক্লাব ফুটবল খেলেছেন মূলত ফ্রেঞ্চ লিগের প্রথম ও দ্বিতীয় ডিভিশনে। বিখ্যাত ফ্রেঞ্চ ক্লাব “সেন্ট ইটেনি”-র হয়ে ৯৯টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। এছাড়া আমেরিকান ফুটবল লিগ “এমএলএস” খেলার অভিজ্ঞতাও রয়েছে তার। ৩১ বছর বয়সী এই ফুটবলার শেষ খেলেছেন ফ্রান্সের দ্বিতীয় ডিভিশন ক্লাব সোচেক্সের হয়ে।

তাই ভাই ক্রিয়েটিভ মিডফিল্ডার হলেও ৩১ বছর বয়সী এই ফুটবলার খেলেন সেন্টার ব্যাক হিসেবে। সন্দেশ ঝিঙ্গান এর ক্লাব ছাড়ার খবর সামনে আসার পর এটিকে মোহনবাগান ভক্তরা যেটুকু চিন্তায় ছিলেন সেই চিন্তা থেকে তারা এবার একটু স্বস্তি পেতে পারেন। গত মৌসুমে ফ্রান্সের তৃতীয় দ্বিতীয় ডিভিশন লিগে তিনি ৩২ টি ম্যাচ খেলে ৯৪ টি ক্লিয়ারেন্স এবং ৩৪ টি ইন্টারসেপশন করেন। এই ৩২ টি ম্যাচে তিনি মাত্র তিনটি হলুদ কার্ড দেখেছেন। জুয়ান ফের্নান্দোর পরিকল্পনায় তিনি বেশ কার্যকরী হয়ে উঠতে পারবেন বলেই সকলের অনুমান।

Related Articles

Back to top button