টাইমলাইনবিনোদন

ভাষা, সংষ্কৃতি আলাদা হলেও সকলেই ভারতীয়, হিন্দিকেই শুধু রাষ্ট্রভাষা কেন করা হবে? বক্তব‍্য আয়ুষ্মানের

বাংলাহান্ট ডেস্ক: বিগত বেশ কয়েকদিন ধরে ভাষা বিতর্ক (Language Row) নিয়ে চাপান উতোর চলছে বলিউড ও দক্ষিণ ভারতীয় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির মধ‍্যে। কন্নড় অভিনেতা কিচ্চা সুদীপের ভাষা নিয়ে মন্তব‍্যের উত্তরে অজয় দেবগণ বলেছিলেন, হিন্দি ভারতের রাষ্ট্রভাষা। এ নিয়ে অনেক জলঘোলা হয়েছে কয়েকদিন ধরে। এবার ভাষা বিতর্ক নিয়ে নিজস্ব মতামত প্রকাশ করলেন আয়ুষ্মান খুরানা (Ayushmann Khurrana)।

আগামী ছবি ‘অনেক’ এর প্রচারে সম্প্রতি কলকাতায় এসেছিলেন আয়ুষ্মান। মূলত রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটের উপরে তৈরি এই ছবিতেই আবার ভাষা নিয়ে ভেদাভেদের প্রসঙ্গ উঠে এসেছে। হিন্দি বলা না বলা নিয়েই কেন ঠিক হবে কে উত্তর ভারতের আর কে দক্ষিণ ভারতের?


হিন্দিকে কি রাষ্ট্রভাষা বানানো উচিত? সংবাদ মাধ‍্যমের প্রশ্নে আয়ুষ্মানের উত্ত‍র, সমস্ত ভারতীয় ভাষাকেই রাষ্ট্রভাষার তকমা দেওয়া উচিত বলে মত তাঁর। কারণ শুধু হিন্দি ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা বানালে যারা ছোট থেকে হিন্দি শেখেনি তাদের আবার নতুন ভাষা শিখতে হবে।

তাছাড়া কেউ কখনোই কোনো শুদ্ধ ভাষায় কথা বলে না। যখন উত্তর প্রদেশে কোনো ছবির শুটিং হয় তখন হিন্দি, উর্দু, ব্রজ ভাষা মিশে যায়। আবার মুম্বইয়ে শুটিং করলে হিন্দির সঙ্গে মেশে মরাঠি। বেশিরভাগ সময়েই হিন্দি বা অন‍্য ভাষার সঙ্গে ইংরেজি শব্দ ঢুকে যায়। তাহলে রাষ্ট্রভাষা বানানোর বেলায় শুধু হিন্দিকে কেন বানানো হবে? প্রশ্ন আয়ুষ্মানের।

অভিনেতার কথায়, ভারত আন‍্যান‍্য দেশের তুলনায় আলাদা। এখানে জায়গা বদলানোর সঙ্গে সঙ্গে বদলায় ভাষা, ধর্ম, সংষ্কৃতি। কিন্তু এত ভিন্ন ভিন্ন ভাষা, সংষ্কৃতি থাকা সত্ত্বেও একটা জায়গাতেই সবার মিল রয়েছে। উত্তর হোক বা দক্ষিণ, সকলেই এই দেশের নাগরিক, সবার পরিচয় তারা ভারতীয়। আর সেটাকেই উদযাপন করা উচিত বলে মনে করেন আয়ুষ্মান।

প্রসঙ্গত, ‘অনেক’ ছবিটি পরিচালনা করেছেন অনুভব সিনহা। এর আগে তাঁর ‘আর্টিকেল ১৫’ ছবিটি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। তাই আবারো অনুভবের সঙ্গেই জুটি বেঁধেছেন আয়ুষ্মান। আগামী ২৭ মে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে ‘অনেক’।

Related Articles

Back to top button