টাইমলাইনভারত

নির্ভয়ার মতোই অত্যাচার করা হয়েছে বলরামপুরের দলিত নাবালিকার সাথে, পোস্টমর্টেম রিপোর্টে উঠে এলো নৃশংসতার কাহিনী

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ উত্তর প্রদেশে বলরামপুরে গণধর্ষণের শিকার হওয়া দলিত নাবালিকা ছাত্রীর পোস্টমর্টেম রিপোর্ট সামনে এসেছে। পোস্টমর্টেম রিপোর্টে নির্যাতিতার শরীরে ১০ যায়গায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গিয়েছে। হাথরসের ঘটনা সামনে আসার পর উত্তরপ্রদেশের বলরামপুরে এক দলিত নাবালিকার সাথে গণধর্ষণ আর হত্যার মামলা সামনে এসেছে। পোস্টমর্টেমের পর পরিজনেরা নির্যাতিতার দেহ সৎকার করে দেন।

পোস্টমর্টেম রিপোর্টে নির্যাতিতার শরীরের দশ যায়গায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। নাবালিকার গাল, ছাতি, থাই, কুনুই আর হাঁটুতে গুরুতর আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গিয়েছে। জানিয়ে দিই, এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত শাহিদ আর সাহিল নামে দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

উত্তর প্রদেশের বলরামপুরে গণধর্ষণের শিকার হওয়া নির্যাতিতার পরিবার পুলিশের পদক্ষেপে সন্তুষ্ট নয়। নির্যাতিতার পরিবার হুঁশিয়ারি দিয়ে বলে, যদি ঘটনায় যুক্ত সমস্ত দোষীদের শীঘ্রই গ্রেফতার না করা হয়, তাহলে তাঁরা নিজেরাই ন্যায়ের জন্য রাস্তায় নামবে। নির্যাতিতার পরিজনেরা জানায়, ন্যায় বিচার না হলে আমরা নিজেরাই দোষীদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দেব এরপর আমরা নিজেরা চৌরাস্তায় আত্মহত্যা করব। পরিজনদের এই হুঁশিয়ারিতে প্রশাসনের কপালে চিন্তার ভাজ পড়েছে।

গণধর্ষণের শিকার যুবতী মঙ্গলবার হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে। সরকারের তরফ থেকে পরিবারকে ছয় লক্ষ ১৮ হাজার টাকার আর্থিক সাহাজ্যের সাথে সাথে পরিবারের এক সদস্যকে সরকারি চাকরি এবং দোষীদের গ্রেফতার করার আশ্বাস দিয়েছে প্রশাসন। চারদিন অতিক্রম হওয়ার পর মূল দোষীরা গ্রেফতার না হওয়ায় নির্যাতিতা পরিবারের ধৈর্যর বাঁধ ভেঙেছে।

পরিজনেরা জানায়, এই ঘটনায় দুই তিনজন না পাঁচ থেকে ছয়জন যুক্ত আছে। পুলিশ এখনো পর্যন্ত মাত্র দুজনকে জেলে পাঠিয়ে তদন্তের নাটক করছে। ধর্ষিতার মায়ের সাথে সাথে পরিবারের অন্য মহিলারাও শুক্রবার এই মামলা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। ধর্ষিতার মা জানান, যদি দোষীদের গ্রেফতার না করা হয় তাহলে তাঁরা নিজেরাই গিয়ে দোষীদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেবেন। এরপর রাস্তার মোড়ে নিজেদের গায়ে তেল ঢেলে আত্মহত্যা করবেন।

Back to top button