টাইমলাইনটাকা পয়সাপশ্চিমবঙ্গআন্তর্জাতিক

বাংলাদেশে ১০,০০০ কোটি টাকার জালিয়াতি করে পশ্চিমবঙ্গে লুকিয়েছিল ব্যবসায়ী, এবার হাতেনাতে ধরল ইডি

বাংলাহান্ট ডেস্ক : বাংলাদেশের কয়েক হাজার কোটি টাকার (India Rupee) জালিয়াতি করে অশোকনগরে লুকিয়ে ছিল অভিযুক্ত। সেখান থেকেই এক মহিলা সহ পাঁচ জনকে হাতেনাতে ধরল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। শনিবারই ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হয় ৬ অভিযুক্তকে। সেখানে ৫ অভিযুক্তের আগামী ১৭ মে অবধি ইডি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। অভিযুক্ত মহিলাকে ১৭ মে অবধি জেল হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অতি শীঘ্রই ধৃতদের বাংলাদেশের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলেই খবর ইডি মারফত।

সূত্রের খবর, এই জালিয়াতির সূত্রপাত ২০১৪ সালে। তারপর ২০১৯ সাল অবধি ৫ বছর ধরেই চলে জালিয়াতি। পুরো ঘটনায় মূলচক্রি ছিলেন প্রশান্ত কুমার হালদার নামের এক ব্যক্তি। তাঁর সঙ্গী ছিলেন প্রণব কুমার হালদার এবং প্রীতিশ কুমার হালদার। বিভিন্ন নামে বাংলাদেশ জুড়ে মোট ২৬ টি কোম্পানি ফেঁদে বসেন এই তিনজন। এরপর গাড়ি, বাড়ি, জমি, ব্যবসা ইত্যাদি দেখিয়ে ওই পাঁচ বছরে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার ঋণ নেওয়া হয় একাধিক ব্যাঙ্ক থেকে। সেই টাকা কোম্পানির অ্যাকাউন্টে জমা পড়ার পরই একাধিক ব্যবসায়ীক লেনদেন দেখিয়ে নিজেদের অ্যাকাউন্টে পাঠয়ে দেওয়া হয় টাকা। এরপর ঘুরপথে হাওলার মাধ্যমে পাচার করা হয় এদেশে।

২০১৯ সালে বিষয়টি দৃষ্টিগোচর হয় বাংলাদেশ সরকারের। তখন তদন্তে নেমে তদন্তকারীরা দেখেন যে সংস্থাগুলির নাম করে ওই বিপুল টাকার ঋণ নেওয়া হয়েছিল সেগুলি খাতায় কলমে থাকলেও তার একটিরও বাস্তবে অস্তিত্ব নেই। এরপর গোয়েন্দারা জানতে পারেন যে দেশছেড়ে পালিয়ে এসে উত্তর ২৪ পরগনার অশোকনগরে লুকিয়ে রয়েছেন মূল অভিযুক্ত প্রশান্ত কুমার হালদার। শুধু আত্মগোপনই নয়, এদেশে এসে শিবশঙ্কর নামে নিজের জাল আধার কার্ড,ভোটার কার্ড এবং ভারতীয় পাসপোর্ট বানিয়ে রীতিমতো খুঁটি গেড়ে ফেলেছেন এরাজ্যেই।

বাংলাদেশের দূর্নীতি দমন শাখার আধিকারিকরা সেই খবর দেন এ রাজ্যের গোয়েন্দাদের। সেই সূত্র ধরেই অতর্কিতে অভিযান চালায় ইডি। ব্যাঙ্ক লুটের টাকায় অভিযুক্তের বিপুল পরিমাণ সম্পত্তির হদিশও মেলে তদন্তে। পুরো বিষয়ে তাঁদের সাহায্য করেন অশোকনগরের এক মাছ ব্যবসায়ী সুকুমার মৃধা এবং তাঁর মেয়ে জামাই। শুক্রবার রাতে গ্রেপ্তার করা হয় তাঁদেরও। ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে বন্দি বিনিময় চুক্তি থাকার অতি শীঘ্রই বন্দিদের বাংলাদেশের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলেই খবর।

Related Articles

Back to top button