টাইমলাইনবিনোদন

গিনিস বুকে নাম, মাইকেল জ্যাকসনের কনসার্টে আমন্ত্রিত একমাত্র ভারতীয়! সত্যিই ‘গোল্ডেন ম্যান’ বাপ্পি লাহিড়ী

বাংলাহান্ট ডেস্ক : একটা সময় বলিউড(Bollywood) টলিউড (Tollywood) মেতে উঠতো তাঁর সুরে। ৯০-এর দশকের তিনি একমাত্র সংগীতশিল্পী যিনি আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন মাইকেল জ্যাকসনের কনসার্টে। বাবা-মায়ের দেওয়া নাম অলকেশ লাহিড়ী। কিন্তু সেই নামে তেমন ভাবে তাঁকে চেনেনা কেউ। তাঁর সুর এবং সংগীতই তাঁর পরিচয়। সুরের কারণে তিনি চিরকাল জীবিত থাকবেন অনুরাগীদের হৃদয়ে। তিনি আর অন্য কেউ নন। তিনি বাপি লাহিড়ী।

সংগীত জগতের এক অন্যতম নাম বাপি লাহিড়ী। ১৯৭৩ সালে হিন্দি ভাষায় নির্মিত ‘নানহা শিকারী’ ছবিতে তিনি প্রথম গান রচনা করেন। এরপর ১৯৭৫ সালে ‘জখমী’ চলচ্চিত্রে কাজ করেন এই সংগীত শিল্পী। তাঁর গাওয়া প্রত্যেকটি গান বাঙালির কাছে এক অন্য আবেগ। কখনও ডিসকো ড্যান্সার তো কখনও আবার রোমান্টিক গান গেয়ে সকলের মন কেড়েছেন বাপি লাহিড়ী।

Entertainment,Bapi Lahiri,Bollywood,Tollywood,Singer,বিনোদন,বলিউড,টলিউড,বাপি লাহিড়ী,সুরকার,সংগীত শিল্পী

৭০ থেকে ৮০ দশকে একমাত্র তিনিই দেখিয়েছিলেন ম্যাজিক। বাংলা ছবি ‘অমর সঙ্গী’-র  চিরদিনই তুমি যে আমার গান এখনও ফিরে সকলের মুখে মুখে। তবে জানেন কি? তিনি নাকি একবার ঠিক করেছিলেন সংগীত জগত ছেড়ে দেবেন। মামার মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ হয়ে পড়েন সংগীতশিল্পী। আর তাতেই সংগীত জগত ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

89605063

কিশোর কুমার ছিলেন এই সংগীত শিল্পীর মামা। মামার সঙ্গে ভাগ্নের সম্পর্ক ছিল বেশ মধুর। ভাগ্নের সুরে একের পর এক গান গেয়েছেন মামা কিশোর কুমার। সে গান আজও শোনা যায় বিভিন্ন জায়গায়। জানা যায়, কিশোর কুমারের মৃত্যুর পর মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলেন এই সংগীতশিল্পী। আর তখনই তিনি সিদ্ধান্ত নেন গানের জগত ছেড়ে দেবেন তিনি। যদিও পরবর্তীতে অনুরাগীদের কথা ভেবেই নিজের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন বাপি লাহিড়ী।

thequint 2017 01 f4545d3d 15b9 446b b3bd eafb34871144 64984e73 ce35 49b5 807f cc17b47320b9

 

মাত্র ১১ বছর বয়সে নাকি প্রথম সুর দিয়েছিলেন এই সুরকার। ১৯ বছর বয়সে পাড়ি দিয়েছিলেন মুম্বাই। সে সময় সংগীত  জগতে কিশোর কুমারের সঙ্গে কঠিন লড়াই চলছিল মোহাম্মদ রফির। কে ভালো তা নিয়ে অনুরাগীদের মধ্যে যত দ্বন্দ্ব। ঠিক সেই সময়তেই ‘জখমী’ ছবিতে একসঙ্গে গান গাইলেন বাপি ও রফি। সেই গান তৈরি করেছিল ইতিহাস। একসময় ৩৩ টি ছবির জন্য মোট ১৮০ টি গান রেকর্ড করে ১৯৮৬ সালে গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ডে নিজের জায়গা করে নেন এই সুরকার। তিনি ছিলেন একমাত্র ভারতীয় সুরকার জিনি মাইকেল জ্যাকশনের কনসার্টে আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন।

bappi lahiri

 

সোনার প্রতি ছিল তাঁর অন্যরকম ভালোবাসা, গলায় ভারি ভারি সোনার চেইন পরতে বেশ ভালোবাসতেন বাপি লাহিড়ী। তাঁর গলায় ছিল একটি গণেশের লকেট। জানা যায় সেই লকেটটা ছিল পান্নাখচিত। এক সাক্ষাতকারে সুরকার জানিয়েছিলেন মাইকেল জ্যাকসন তাঁর এই লকেটের ভূয়ষী  প্রশংসা করেছিলেন। গায়ক সুরকারের পাশাপাশি একজন সমাজসেবক হিসেবেও পরিচিত ছিলেন বাপি লাহিড়ী। হাউজ অফ ওয়ার্ল্ড সম্মানও পেয়েছেন তিনি।

Related Articles