টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

আপনজনকে হারিয়ে ফেললাম, তাপসের মৃত্যু মানতে পারছি না: রঞ্জিত মল্লিক, দেবশ্রী

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ মঙ্গলবার ভোরে মাত্র ৬১ বছর বয়সে মুম্বাইয়ের একটি বেসরকারী হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বাংলা বিনোদন জগতের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র তাপস পাল (Tapas pal)। তাঁর এই হঠাৎ মৃত্যুকে মেনে নিতে পারছেন না টলিউড দুনিয়ার অনেকেই। তবে রাজনীতিতে নাম লিখিয়ে শেষের দিকে কিছু বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে তাঁকে অনেক সমালচনার সম্মুখীনও হতে হয়েছে।
তাপস পালের এই আচমকা মৃত্যুতে এখনও বিশ্বাস করতে পারছেন না তাঁর সহকর্মীরা। এই প্রসঙ্গে অভিনেত্রী দেবশ্রী রায় বলেন, ‘আমি কিছুতেই মেনে নিতে পারছি না যে তাপস আর নেই।

আমার এক আপনজনকে হারিয়ে ফেললাম’। বহু ছায়াছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছেন তাঁরা। কখনো তাপস পালের নায়িকা হিসাবে, আবার কখনো সহ অভিনেত্রী হিসাবে। দাদার কীর্তি, সমাপ্তি, চোখের আলোয়, পর্বত প্রিয়, আগমন, সুরের আকাশে সহ বেশ কিছু জনপ্রিয় ছবিতে তাঁরা একসঙ্গে কাজ করেছেন। কিন্তু সহ অভিনেতার এই আচমকা মৃত্যুকে এখনও তিনি মেনে নিতে পারেননি।

অভিনেতা রঞ্জিত মল্লিক তাপস পালের সঙ্গে অনেক ছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছেন । এই সংবাদ পেয়ে তিনি জানান, খবরটা শুনে আমারও খুব খারাপ লাগছে। অনেক ছবিতে আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। সব ছবিই প্রায় দর্শকমহলে জনপ্রিয়। গুরুদক্ষিণার মতো সিনেমায় তাঁর অভিনয় অসামান্য ছিল। দীর্ঘদিন ধরে তো আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি, তাই খবরটা শুনে মন খুব খারাপ হয়ে গেল। আর কী বলব? ওঁর আত্মার শান্তি কামনা করি।

অভিনয়ের পাশাপাশি ২০০৯ সালের ভারতীয় সাধারণ নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে ভোটে দাঁড়িয়ে তিনি কৃষ্ণনগর থেকে এমপি হিসাবে নির্বাচিত হন। এর পর থেকে বিভিন্ন রকম আপত্তিকর মন্তব্য করে বহুবার সমালোচনার শিকার হন তিনি। এমনকি রোজভ্যালি কান্ডেও তাঁর নাম জড়িয়ে পড়তে শোনা যায়। ২৮ জানুয়ারি মুম্বাই গিয়েছিলেন মেয়ের সঙ্গে দেখা করতে। সেখান থেকে ফেরার আগেই হঠাৎ বুকে ব্যথা শুরু হয়। আর তখন থেকেই মুম্বাইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছিল। মঙ্গলবার সকালে তাঁর এই মৃত্যু সংবাদে টলিপাড়ায় নেমে আসে শোকের ছায়া।

Back to top button