টাইমলাইনভারতরাজনীতি

‘এবার তোর পালা’, উদয়পুরের মতোই প্রাক্তন বিজেপি নেতা নবীন জিন্দালের শিরচ্ছেদ করার হুমকি

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ  প্রায় এক মাসের উপর পেরিয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত নূপুর শর্মা সম্পর্কিত বিতর্ক জারি রয়েছে গোটা দেশে। একশ্রেণীর মানুষ যখন প্রাক্তন বিজেপি মুখপাত্রের বক্তব্যকে নিন্দা করে চলেছে, আবার অপরদিকে সেই বক্তব্যের প্রতি বেশ কয়েকজনকে সমর্থন ব্যক্ত করতেও দেখা গিয়েছে। তবে এর মাঝেই আবার ঘটেছে এক ভয়ঙ্কর ঘটনা, যেখানে নূপুর শর্মার বক্তব্যকে সমর্থন করার অপরাধে রাজস্থানের উদয়পুরে এক হিন্দু দর্জিকে নৃশংসভাবে খুন করে দুষ্কৃতীরা। তার মুণ্ডচ্ছেদ পর্যন্ত করা হয়। বর্তমানে এই ঘটনা নিয়ে যখন গোটা দেশে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে, তার মাঝেই এদিন খুনের হুমকি সহ ইমেইল পেলেন বিজেপি নেতা নবীন জিন্দাল। পয়গম্বর বিতর্কে বর্তমানে তিনি দল থেকে বহিষ্কৃত রয়েছেন। সেই নেতাকেই ইমেইল মারফত লেখা হলো, “এবার তোর পালা।”

দেশের চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতি মাঝেই ইমেইল ঘটনায় স্বভাবতই ভীত হয়ে পড়েন বিজেপি নেতা। পরবর্তীতে তিনি তাঁর টুইটার একাউন্টে লেখেন, “আজ ভোর 6 টা 43 মিনিটে আমার কাছে তিনটি ইমেইল আসে, যেখানে রাজস্থানের উদয়পুরে নৃশংস কাণ্ডের ভিডিও পাঠানো হয় এবং আমার ও আমার পরিবারের সকলের মুণ্ডচ্ছেদ করার হুমকি পর্যন্ত দেওয়া হয়।” এই ঘটনাটি সামনে আসার পরে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র।

যদিও উদয়পুরের হত্যাকাণ্ডের নিন্দা করে এআইএমআইএম প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসি বলেন, “উদয়পুরে যে ঘটনাটি ঘটেছে, তার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আমরা দাবি করে আসছি যে, নূপুর শর্মাকে অবিলম্বে গ্রেফতার করতে হবে। তবে যাই হয়ে যাক না কেন আমরা কখনোই আইনকে নিজেদের হাতে তুলে নিতে পারি না। তাই কাউকে খুন করা উচিত নয়। প্রশাসন যেন এই ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়।”

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি প্রকাশ্য দিবালোকে কানাইয়ালাল নামে বছর চল্লিশের ওই ব্যক্তিকে গলার নলি কেটে কুপিয়ে খুন করে হত্যাকারীরা। শুধু তাই নয়, হত্যাকারীরা হাড়হিম করা ওই দৃশ্যের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্টও করে। দুই হত্যাকারীর তরফে আলাদা আলাদা ভাবে দুটো ভিডিও পোস্ট করা হয়। জানা যায় যে, পেশায় দর্জি রাজস্থানের ওই ব্যক্তি দিন দশেক আগে নূপুর শর্মার সমর্থনে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করেছিলেন। ফলে ওই পোস্ট ঘিরে আপত্তির কারণে ধর্মান্ধ ব্যক্তিরা এই খুন করেছে বলেই অনুমান পুলিশের আর এবার বিজেপি নেতাকে খুনের হুমকি সেই বিতর্ককে আরো বাড়ালো বলেই মত বিশেষজ্ঞদের।

Related Articles

Back to top button