টাইমলাইনআন্তর্জাতিক

নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোসের আশ্রয় নেওয়া গ্রামে মোবাইল নেটওয়ার্ক তৈরির জন্য নেই BSNL এর টাকা

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ  ১৯৪৪ সালে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুকে (Netaji Subhash Chandra) আশ্রয় নিয়েছিল নাগাল্যান্ডের ‘রুজাও’ গ্রাম। ৭৬ বছর পেরিয়ে গেলেও এই গ্রামটির কোনও মোবাইল টাওয়ার বসেনি। বনরসের সুভাষ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা তমাল সান্যাল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে মোবাইল টাওয়ারের বিষয়টি উত্থাপন করেছিলেন।সেখান থেকে তাকে বলা হয়, টাওয়ার স্থাপনের জন্য বিএসএনএলের তহবিল নেই।

তিনি বলেন, নাগাল্যান্ডে যখন ৪ জি প্রযুক্তি সরঞ্জাম স্থাপন করা হবে তখন এই গ্রামটি বিবেচনা করা হবে। নেতাজী তাঁর সেনাবাহিনী নিয়ে নিকটবর্তী জেসামি গ্রামে পৌঁছেছিলেন এবং তারপর সেখান থেকে রুজাজোতে আসেন। সুতরাং, এটি যুদ্ধের সময়, ব্রিটিশ আর্মি ক্রমাগত বোমা ফেলেছিল। সুভাষ চন্দ্র বোস, এই গ্রাম থেকে যাওয়ার সময়, লোকদের জায়গাটির ভাগ্য পরিবর্তনের আশ্বাসও দিয়েছিলেন বলে জানান তিনি।

বাচ্চাদের জন্য ভাল স্কুল থাকবে, পরিষ্কার জল এবং ভাত পাওয়া যাবে। নেতাজি এখান থেকে চলে যাওয়ার সময় বলেছিলেন, কেউ চিন্তা করবেন না। আমি এই গ্রামটিকে সবসময় মনে রাখব।

অমল সান্যাল বলেন, এই গ্রামে প্রাথমিক সুযোগ-সুবিধাগুলি সরবরাহের জন্য নাগাল্যান্ড প্রশাসনের কাছে একাধিকবার চিঠি লিখেছেন তিনি। ১৯৪৪ সালে সুভাষচন্দ্র বসু ও তাঁর সেনাবাহিনী নিয়ে এই গ্রামে নয়দিন অবস্থান ছিলেন।

আমি যখন গত বছর এই গ্রামে পৌঁছলাম তখন একশ বছরেরও বেশি বয়সী বাপসুভি স্বোরো পুরানো স্মৃতি ফিরিয়ে এনেছিলেন। সেই সময় সুভাষ চন্দ্র বসু এই গ্রামটিকে তাঁর সদর দফতর করেছিলেন। তারা গ্রামে উচ্চতায় পাথরের মাঝখানে বসে থাকত। এর কারণ হ’ল ব্রিটিশ সেনাবাহিনী নিয়মিত নেতাজির দিকে নজর রাখছিল। শত্রু বিমানগুলি তাদের পুনরুদ্ধার করতে গ্রামের উপর দিয়ে ঘুরে বেড়াত। সেখানে বোমা ফাটাচ্ছিল। হাজার হাজার সৈন্যও নেতাজির সাথে গ্রামে অবস্থান করছিলেন।

সমস্ত লোক নেতাজিকে সম্পূর্ণ সমর্থন করেছিলেন। সাহায্যের নামে লোকেরা কেবল চাল চেয়েছিল। লোকেরা ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল আর্মি (আইএনএ) কে খাওয়ানোর জন্য টানা কয়েক দিন চালও দিয়েছিল।

এই গ্রামটিকে ঐতিহ্য হিসাবে ঘোষণা করার জন্য অনেক চিঠি লেখা হয়েছিল, কিন্তু কোনও শুনানি হয়নি। যে বাড়িটিতে নেতাজি নয়দিন অবস্থান করেছিলেন, সেগুলি ধ্বংসস্তূপে পরিণত হচ্ছে। গ্রামে মোবাইল টাওয়ার, ভাল সরকারী বিদ্যালয়, প্রতিটি বাড়িতে পরিষ্কার পানীয় জল, রাইস মিল এবং কর্মসংস্থান রয়েছে, যার কোনটিই সেখানে নেই।

লোকজনকে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করতে অন্য গ্রামে চলে যেতে হবে। নাগাল্যান্ড প্রশাসনের কাছে একটি মোবাইল টাওয়ার স্থাপন করতে বলা হয়েছে। দাবি পত্রটি বিএসএনএলকে হস্তান্তর করা হলেও এখনও এর অর্থবহ উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

Back to top button