টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

তৃণমূলের নেতা-বিধায়করা টিকা পেলেও, পেলেন না স্বাস্থ্যকর্মীরা! খালি হাতেই ফিরতে হলে করোনা যোদ্ধাদের

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ আজ পূর্ব বর্ধমানে তৃণমূল নেতা, বিধায়কদের মধ্যে করোনার টিকা নেওয়ার জন্য হুড়োহুড়ি চোখে পড়ল। আজ পূর্ব বর্ধমানের ভাতারের তৃণমূল বিধায়ক সুভাষ মণ্ডল এবং প্রাক্তন বিধায়ক বনমালী হাজরা ক্ষমতার জোরে করোনার টিকা নিয়েই নিলেন। এছাড়াও কাটোয়ার তৃণমূল বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়ও ঠিক একই কাজ করলেন। যদিও সাফাই হিসেবে পূর্ব বর্ধমান জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক জানিয়েছেন যে, এরা প্রত্যেকেই কোনও না কোনও হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির সদস্য। হাসপাতালের সুখ দুঃখে এনারা পাশে থাকেন। তাই এনারা করোনার ভ্যাকসিন পাওয়ার যোগ্য।

এছাড়াও আজ টিকা নেন, জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ জওহর বাগদি এবং জনস্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ মহেন্দ্র হাজরা। এছাড়াও টিকা নেন পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূল নেতা বাসুদেব যশ। এনাদের মধ্যে শুধুমাত্র মহেন্দ্র হাজরাই ভাতার স্টেট জেনারেল হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির সদস্য। কিন্তু বাকি দুজন শাসক দলের নেতা ছাড়া কিছুই নন। তাহলে দেশের ফ্রন্টলাইন কর্মীদের জন্য বরাদ্দ টিকা এনারা কি করে নিলেন? সেটা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

আজ করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে ভাতারের তৃণমূল বিধায়ক সুভাষ মণ্ডল জানান, ‘আমি টিকা নিয়েছি, আমার কোনওরকম অসুবিধে হচ্ছে না। আমি সবাইকেই টিকা নেওয়ার কথা বলব। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সবাইকে বিনামূল্যে টিকা দেবেন বলেছেন, আপনারা সবাই টিকা নেবেন।” আরেকদিকে ভাতারের প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক বলমালী হাজরা বলেন, ‘আমি ভাতার সমেত সমগ্র রাজ্যবাসী আর দেশবাসীকে করোনার টিকা নিতে বলার জন্যই আজ টিকা নিলাম।”

তৃণমূলের নেতা বিধায়কেরা টিকা পেলেও খালি হাতে ফিরতে হল ১৫ জন স্বাস্থ্য কর্মীকে। ভ্যাকসিন প্রাপকদের তালিকায় নাম ছিল তাঁদের। কিন্তু তা স্বত্বেও মিলল না ভ্যাকসিন। এর জেরে শনিবার ভ্যাকসিন ছাড়াই ফিরতে হল বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজের নার্সিং স্টাফ অনিতা মজুমদার সহ ১৫ জনকে। অনিতা মজুমদার জানান, ‘গতকাল ভ্যাকসিন দেওয়া নিয়ে আমাদের সাথে যোগাযোগ করা হয়েছিল। কিন্তু আজ হাসপাতালে যেতেই আমাদের বলা হল যে, তালিকায় আমাদের নাম নেই। এরপরের ধাপে আমরা টিকা পাবো।”

অনিতা মজুমদার

১৫ জন স্বাস্থ্য কর্মী টিকা না পাওয়ার পর বর্ধমান জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রণব রায় বলেন, ‘এই বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারব না, এই বিষয়ে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজের কর্তৃপক্ষরাই জানেন। আমার জানা নেই। বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ সুহৃতা পাল এই বিষয়ে বলেন,’ অনিতা মজুমদার সহ বাকিদের ডাকা হয়েছিল, কিন্তু তালিকায় নাম না থাকায় আজ তাঁদের টিকা দেওয়া হয়নি। আগামী দফায় ওদের টিকা দেওয়া হবে।”

Back to top button