fbpx
টাইমলাইনরাজনীতি

CAA না মানলেই রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হবে রাজ্যে

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ নাগরিকতা আইন নিয়ে ফুঁসছে গোটা দেশ। দেশের প্রতিটি রাজ্যেই নাগরিকতা আইনের বিরোধিতার নামে তাণ্ডবের চিত্র দেখা গেছে। সবথেকে বেশি প্রভাবিত হয়েছে উত্তর প্রদেশ আর পশ্চিমবঙ্গ। এরাজ্যে নাগরিকতা আইনের বিরোধিতা করতে গিয়ে কারোর মৃত্যুর খবর না পাওয়া গেলেও, যোগ শাসিত উত্তর প্রদেশ থেকে বেশ কয়েকজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ কড়া নির্দেশিকা জারি করে বলেছিলেন যে, কেউ অশান্তি ছড়াতে এলে তাঁকে যেন ছাড়া না হয়। আর সেই ক্রমেই উত্তর প্রদেশ পুলিশ উপদ্রবিদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিয়ে তাঁদের ছত্রভঙ্গ করার জন্য নানান কৌশল আপন করে নিয়েছিল। আরেকদিকে দেশের রাজধানী দিল্লী থেকেও আইনের প্রতিবাদের নামে হিংসাত্মক আন্দোলনের চেহারা গোটা দেশ দেখেছে।

আরেকদিকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী, কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন এবং মধ্যপ্রদেশ সমেত আরও কয়েকটি রাজ্যে নাগরিকতা সংশোধন আইন লাগু হবেনা বলে জানিয়ে দিয়েছে মুখ্যমন্ত্রীরা। সবথেকে বিরল ঘটনা ঘটেছে কেরল থেকে। কেরলের বিধানসভায় নাগরিকতা আইন বিরোধী বিল পাশ করিয়ে নিয়েছে কেরল সরকার।

যদিও কেরল সরকারের এই কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে মুখ খুলে কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রী বলেছেন, সংসদ দ্বারা পাশ করানো আইন বাতিল করার ক্ষমতা কোন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর নেই। আরেকদিকে মধ্যপ্রদেশের বিজেপির সাংসদের সম্প্রতি একটি বয়ানের পর আবারও বিতর্ক ছড়িয়েছে।

মধ্যপ্রদেশের বিজেপি সাংসদ উদয় প্রতাপ সিং সমস্ত বিরোধীদের হুমকির সুরেই বলেছেন যে, যে সমস্ত রাজ্য এই আইন লাগু করতে বাধা সৃষ্টি করবে, সেখানে সরকার বরখাস্ত করে রাষ্ট্রপতি শাসন লাগু করে দেওয়া হবে। বিজেপির সাংসদ আরও বলেন, সংবিধান অনুযায়ী কোন রাজ্য সরকার দায়িত্ব পালনে ব্যার্থ হলে সেখানে ৩৫৬ ধারা জারি করে বিধানসভার কার্যক্ষমতা বাতিল করতে পারেন রাষ্ট্রপতি।

Back to top button
Close