টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

উৎসবে সংক্রামিতের সংখ্যা বেড়েছে প্রকাশ কেন্দ্রের রিপোর্টে, মৃত্যুর তালিকায় দুনম্বরে উঠে এল বাংলা

হাইকোর্টের নির্দেশে দুর্গাপূজায় (durga puja) প্যান্ডেল হপিং করতে পারেনি বাঙালি। রাস্তাঘাটও ছিল উল্লেখযোগ্য রকমের ফাঁকা। কিন্তু তা সত্ত্বেও পুজোর দিনগুলিতে বাংলায় সংক্রামিতের সংখ্যা বেড়েছে। গত দু’সপ্তাহে মোট রোগীর প্রশ্নে দশম থেকে পঞ্চম স্থানে উঠে এসেছে পশ্চিমবঙ্গ। ২৪ ঘন্টায় মৃত্যুর নিরিখেও উঠে এসেছে দুনম্বরে।

বাংলার শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপূজার বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই মেতে উঠেছিল একটা বিরাট অংশের আমজনতা। ধর্মতলা থেকে গড়িয়াহাট, বিকিকিনির ভিড় ছিল চোখে পড়ার মত। সোশ্যাল ডিস্টেন্স মানা দু দুরের কথা অনেকেরই মুখে মাস্কটুকুও ছিল না। এই সময়েই হু হু করে বাড়তে থাকে সংক্রামিতের সংখ্যা। এরপরই হাইকোর্ট প্রতিটি পুজো মন্ডপকে নো এন্ট্রি জোন ঘোষনা করে। যদিও তারপরেও কিছুটা বেড়েছে সংক্রমন।

যদিও পুজোর প্রথম কয়দিন বেশ সচেতনতা দেখিয়েছেন বাংলার আমজনতা। কিন্তু নবমীতে বেশ ভিড় চোখে পড়েছে। অনেকেই হয়তো ঠাকুর দেখতে যান নি কিন্তু রাস্তায় খানিকটা বেরিয়ে এসেছেন কিংবা হোটেল রেস্তোরাঁতে গিয়ে ভুড়িভোজ সেরে এসেছেন।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে দেশে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা কমলেও। বেশ কয়েকটি রাজ্যে এই মুহুর্তে সংক্রমণ বাড়ছে। মোট আক্রান্তের ৭৮ শতাংশই এই রাজ্যগুলিতে। এই তালিকায় আছে বাংলাও। মোট রোগীর নিরিখে গত ২ সপ্তাহে দশম থেকে যেমন পঞ্চম স্থানে উঠে এসেছে আমাদের রাজ্য, তেমনই সার্বিক মৃত্যুর নিরিখে এই মুহুর্তে বাংলার স্থান ছয়ে৷

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের রিপোর্টে আরো বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘন্টায় সংক্রমণের নিরিখে বাংলার স্থান দ্বিতীয়। প্রথমে রয়েছে বাম শাসিত কেরল। আমার মৃত্যুর নিরিখেও গত ২৪ ঘন্টায় বাংলা দেশের মধ্যে দুই নম্বরে রয়েছে। এক্ষেত্রে মহারাষ্ট্র রয়েছে প্রথমে।

 

Back to top button