টাইমলাইনভারত

৭২ হাজার আমেরিকান অ্যাসাল্ট রাইফেল সমেত ২২৯০ কোটি টাকার হাতিয়ার কেনার মঞ্জুরি দিলো কেন্দ্র

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ পূর্ব লাদাখে (Ladakh) চীনের সাথে সীমান্ত নিয়ে জারি বিবাদের মধ্যে ভারত (India) নিজের প্রতিরক্ষা ক্ষমতা লাগাতার মজবুত করার কাজ করে চলেছে। আর সেই ক্রমেই প্রতিরক্ষা মন্ত্রালয় সোমবার ২ হাজার ২৯০ কোটি টাকার হাতিয়ার অধিগ্রহণের মঞ্জুরি দিয়েছে। এই চুক্তিকে আমেরিকার থেকে কেনা ৭২ হাজার অ্যাসাল্ট রাইফেলও যুক্ত আছে।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের নেতৃত্বাধীন প্রতিরক্ষা অধিগ্রহণ কাউন্সিল (DCA) আমেরিকার ফার্ম এসআইজি সৌর (SiG Sauer) এর থেকে ৭৮০ কোটি টাকার অ্যাসাল্ট রাইফেল কেনার মঞ্জুরি দিয়েছে। জানিয়ে দিই, গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে হওয়া ফাস্ট ট্র্যাক ক্রয় চুক্তি অনুযায়ী ভারতীয় সেনাকে এর আগেই ৭২ হাজার ৪০০ এসআইজি রাইফেল দেওয়া হয়েছে। 7.62×51 ক্যালিবারের এই রাইফেলের প্রভাবি মারক ক্ষমতা ৫০০ মিটার।

এর সাথে সাথে প্রতিরক্ষা অধিগ্রহণ কাউন্সিল সোমবার ৯৭০ কোটি টাকার স্বদেশী স্মার্ট অ্যান্টি এয়ারফিল্ড হাতিয়ার আর ৫৪০ কোটি টাকার এইচএফ ট্রান্স রিসিভার সেট কেনার মঞ্জুরি দিয়ে দিয়েছে।

আরেকদিকে,  ফ্রান্স (France) ভারতের (India) হাতে পাঁচটি রাফাল (Dassault Rafale) লড়াকু বিমানের দ্বিতীয় ব্যাচ তুলে দিলো। এই বিমান গুলো এখনো ফ্রান্সেই আছে আর অক্টোবর মাসে ভারতে চলে আসবে। এই বিমান গুলোকে পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) কলাইকুন্ডা এয়ারফোর্স স্টেশনে (Kalaikunda Air Force Station) মোতায়েন করা হবে, এখান থেকে বিমান গুলো ভারত-চীন সীমান্তের পূর্ব ভাগের সুরক্ষা প্রদান করবে।

ভারতে ফ্রান্সের রাজদূত এমানুয়েল লেনিন বলেন, রাফাল ফাইটার জেটের দ্বিতীয় ব্যাচ ভারতের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। আপাতত এই বিমান গুলো ফ্রান্সেই আছে। এখন ভারত নির্ণয় নেবে যে, কখন এই বিমান গুলোকে তাঁরা দেশে নিয়ে যাবে।

ভারত আর চীনের মধ্যে উত্তেজনা লাগাতার বেড়েই চলেছে, আর এই কারণে ভারতের হালে রাফাল বিমানের দ্বিতীয় ব্যাচ তাড়াতাড়ি আসা খুবই দরকার। কারণ এই বিমান গুলো কম তাপমাত্রাতেও সহজেই কাজ করতে পারবে। ভারতে আসা পাঁচ রাফাল বিমানের প্রথম ব্যাচ ২৫০ ঘণ্টার বেশি উড়ান আর ফিল্ড ফায়ারিং পরীক্ষণ সম্পূর্ণ করেছে। এই বিমান গুলোকে আম্বালায় ১৭ গোল্ডেন অ্যারো স্কোয়াডে যুক্ত করা হয়েছে। সেখানে একজন মহিলা ফাইটার বিমান চালকও আছে।

ভারত ৩৬ টি রাফাল বিমান কেনার জন্য ফ্রান্সের সাথে একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে। ৩৬ টির মধ্যে ৩০ টি ফাইটার জেট থাকবে, আর ছয়টি থাকবে প্রশিক্ষণ বিমান। এই প্রশিক্ষণ বিমান গুলোতে দুটি করে সিট থাকবে আর লড়াকু বিমানের মতো সব সুবিধাই উপলব্ধ থাকবে। রাশিয়া থেকে শুখোই বিমান কেনার প্রায় ২৩ বছর পর প্রথমবার ভারত কোনও লড়াকু বিমান কিনল।

Back to top button