টাইমলাইনবিনোদন

ভারতে থাকতে হলে হিন্দি বলতে হবে! খাস পশ্চিমবঙ্গে বসে জুলুমের শিকার টলিউড পরিচালক

বাংলাহান্ট ডেস্ক: ভারতে থাকেন আর হিন্দি জানেন না! এমন কথা অন‍্য কোনো রাজ‍্যে গিয়ে শোনা গেলে তাও মানা যেত। কিন্তু খাস পশ্চিমবঙ্গে বসে বাংলা বলার জন‍্য ধমক! মানা যায়? কিন্তু এমনটা ঘটেছে বাস্তবেই, টলিউড পরিচালক সত্রাজিৎ সেনের (satrajit sen) সঙ্গে। তাঁর ‘অপরাধ’ ছিল একজন হিন্দিভাষীর সঙ্গে বাংলায় কথা বলেছিলেন তিনি। তার জন‍্য পালটা ধমক খেতে হল এক ডেলিভারি বয়ের থেকে।

সম্প্রতি একটি জনপ্রিয় চশমার ব্র‍্যান্ড থেকে দুটি চশমা অর্ডার করেছিলেন সত্রাজিৎ। কিন্তু চশমা আসায় দেখা গেল তাতে পাওয়ার ভুল। বাধ‍্য হয়ে সেগুলো ফেরত পাঠানোর ব‍্যবস্থা করেন তিনি। একটি থার্ড পার্টি ওই ব্র‍্যান্ডের লজিস্টিকের কাজ সামলায়। তো ডেলিভারি বয় যখন পরিচালককে ফোন করেন তখন তিনি জানান যে তাঁর চশমা ইতিমধ‍্যেই ফেরত নিয়ে নেওয়া হয়েছে।


কিন্তু কথাগুলি বাংলায় বলেছিলেন তিনি। কারণ হিন্দিতে এতকিছু বিশদে বোঝানো সম্ভব ছিল না। এতেই ক্ষেপে যান ওই ডেলিভারি বয়। বেশ ঝাঁঝের সঙ্গেই তিনি হিন্দিতে পালটা প্রশ্ন করেন, “কিঁউ মেরে হিন্দি বোলনে সে কেয়া ফরক পড়তা হ্যায়, আপ কহা পে রহতে হো? বাংলাদেশ মে?” (কেন আমি হিন্দি বললে কী সমস‍্যা? আপনি থাকেন কোথায় বাংলাদেশে?)

এখানেই থামেননি ওই ডেলিভারি বয়। মেজাজ দেখিয়ে তিনি বলেন, তিনি রাজ‍্যের বাইরে থেকে এখানে কাজ করতে এসেছেন। কিন্তু যেহেতু পরিচালক ভারতে থাকেন তাই হিন্দি জানাটা তাঁর জরুরি। সংবাদ মাধ‍্যমকে সত্রাজিৎ জানান, পশ্চিমবঙ্গে বসে একথা তাঁকে শুনতে হবে তা ভাবতে পারেননি তিনি। ওই ডেলিভারি বয়ের স্পর্ধা দেখে হতবাক হয়ে গিয়েছিলেন পরিচালক।

তবে চুপ করে বসে থাকার পাত্র নন সত্রাজিৎ। টুইটারে ওই চশমার ব্র‍্যান্ডকে ট‍্যাগ করে গোটা ঘটনাটা জানিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন। পাশে পান সৃজিত মুখোপাধ‍্যায়, পরমব্রত চট্টোপাধ‍্যায়দেরও। এরপরেই অবশ‍্য ওই নামী ব্র‍্যান্ডের তরফ থেকে সত্রাজিতের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। ওই ডেলিভারি বয়ের শাস্তি চাইলেও কারোর চাকরি চলে যাক এমনটা তিনি চান না। তাঁর কথায়, ডেলিভারি বয় না রাজনীতির মঞ্চই তাঁর জন‍্য উপযুক্ত স্থান।

Related Articles

Back to top button