টাইমলাইনফুটবলখেলা

“জিততেই এসেছি, বিপক্ষ দল ইস্টবেঙ্গলকে ভয় পাবে”, ক্লাবে পৌঁছে অনুশীলনের পর বয়ান কনস্ট্যানটাইনের

বাংলা হান্ট নিউজ ডেস্ক: ঘটনাবহুল দিন কাটলো ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে। সকালেই কলকাতা পৌঁছে গিয়েছিলেন দলের প্রধান কোচ স্টিফেন কনস্ট্যানটাইন। প্রাক্তন ভারতীয় কোচকে বিমানবন্দরে সাদর অভ্যর্থনা জানায় লাল হলুদ সমর্থকরা। আজ থেকে অনুশীলন শুরু হয়েছে ইস্টবেঙ্গলের ফুটবলারদের। প্রায় ৩০ জন ফুটবলার ইস্টবেঙ্গলের প্রাক-মরশুম প্রস্তুতি শিবিরে যোগ দিয়েছিলেন। এদিন শুধুমাত্র বিনো জর্জেরই ফুটবলারদের নিয়ে অনুশীলনে নামার কথা ছিল। কিন্তু বেলা তিনটে নাগাদ যখন ইস্টবেঙ্গলের প্র্যাক্টিস জার্সি গায়ে চাপিয়ে ফুটবলারদের সাথে যোগ দেন কনস্ট্যানটাইন। হর্ষধ্বনির মধ্যে দিয়ে নতুন কোচকে বরণ করে নেন সমর্থকরা।

এরপর অনুশীলন চলাকালীন গলায় মালা পরিয়ে বরণ করা হয় তাকে। দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে আর একটা মূহূর্তও নষ্ট করতে রাজি নন তিনি। অনুশীলনের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বাকি দলগুলোকে হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন কনস্ট্যানটাইন। ইস্টবেঙ্গল কোচ বললেন, ”আমরা সঠিক পথেই এগিয়ে যাবো, আমরা এমন একটা স্কোয়াড গড়ে তুলবো যাদের মুখোমুখি হওয়ার কথা ভেবে অস্বস্তিতে থাকবে যাবতীয় প্রতিপক্ষ।”

 

যদিও অন্যান্য ক্লাবগুলি তাদের অনেক আগেই প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে। বেশ খানিকটা পিছিয়ে রয়েছে সেদিক দিয়ে ইস্টবেঙ্গল। জেরি, সার্থক, অনিকেতদের অনুশীলন করানোর মধ্যে দিয়ে সেটা বুঝতেও পেরে গিয়েছেন প্রাক্তন ভারতীয় ফুটবল কোচ। জানিয়েছেন, “বেশি বাছাবাছি করার আর সময় নেই আমাদের সামনে। যারা আমাদের সঙ্গে আছেন তারাও যথেষ্ট যোগ্য। কম সময়ের মধ্যেই সকলকে প্রস্তুত করে তোলা হবে।”

এদিন অনুশীলনের পর শীর্ষকর্তা দেবব্রত সরকারের সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলতে দেখা যায় কনস্ট্যানটাইনকে। সম্ভবত দলগঠনের বাকি কাজগুলি কিভাবে হবে সেই নিয়ে আলোচনা করেছেন তিনি। ভক্তদের আবারও একবার পাশে দাঁড়ানোর বার্তা দিয়েছেন লাল হলুদ কোচ। যদিও ডুরান্ডে বা কলকাতা লিগে তিনি দায়িত্বে থাকছেন না। কেরালাকে সন্তোষ ট্রফি দেওয়া কোচ বিনো জর্জ কোচিং করাবেন। তাকেও দুই গোলকিপার শুভাশিস ও পবন কুমারকে নিয়ে আলাদা অনুশীলন করাতে দেখা গিয়েছে।

Related Articles