টাইমলাইনভারতখেলাআন্তর্জাতিকক্রিকেট

সৌরভের BCCI-র সামনে মাথানত করল ইংলিশ ক্রিকেট বোর্ড, ICC-কে লেখা চিঠি নিতে পারে ফেরত

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ করোনার কারণে ভারত ইংল্যান্ড পঞ্চম টেস্ট বাতিল হওয়ার পর থেকেই ইসিবি এবং বিসিসিআইয়ের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। প্রথমে রবি শাস্ত্রী সহ ভারতীয় দলের তিন কোচ এবং পরে ফিজিও যোগেশ পারমার করোনা আক্রান্ত হওয়ায় আশঙ্কিত হয়ে পঞ্চম টেস্টের জন্য মাঠে নামতে চাননি ভারতীয় খেলোয়াড়রা।যার জেরেই শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি বাতিল করে দিতে হয়। যদিও সিরিজ বিষয়ে এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি, তবে ২-১ এ এগিয়ে রয়েছে ভারতীয় দল।

এবার এই বিষয়ে আইসিসির দ্বারস্থ হলো ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড। ইংরেজ মিডিয়ার রিপোর্ট অনুযায়ী ইতিমধ্যেই এ বিষয়ে আইসিসিকে একটি চিঠি দিয়েছে তারা। তারা জানিয়েছে, ভারতীয় খেলোয়াড়দের রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পরেও তারা মাঠে নামতে চান নি। সেই কারণে এখন আইসিসিকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে ম্যাচটি বাতিল বলে ঘোষিত হবে নাকি ইংল্যান্ডকে জয়ী ঘোষণা করা হবে। কারণ এর ওপর নির্ভর করবে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্টও। যদিও এও শোনা যাচ্ছে যে, ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড এই চিঠি ফিরিয়ে নিতে পারে। এ নিয়ে তারা সরাসরি কথা বলতে পারে বিসিসিআইয়ের সঙ্গে।

যদিও বিসিসিআই তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে টেস্ট সিরিজের পঞ্চম ম্যাচটি স্থগিত বলেই ধরে নিতে হবে। তার বদলে ভারত পরবর্তী সফরের দুটি অতিরিক্ত টি-টোয়েন্টি খেলতে রাজি রয়েছে। কিন্তু টেস্ট সিরিজকে এত লম্বা করা যাবেনা। নিজের ইন্টারভিউতে একথাই জানিয়েছেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলী। বিসিসিআই এবং ইসিবি’র মতপার্থক্যের প্রভাব ইতিমধ্যেই সামনে আসতে শুরু করেছে।

একদিকে যেমন আইপিএল থেকে নাম তুলে নিয়েছেন একাধিক ইংরেজ খেলোয়াড়, তেমনই আবার বাকি খেলোয়াড়দের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে প্লে অফসের আগেই দেশে ফিরতে হবে তাদের। সব মিলিয়ে দেখতে গেলে বল এখন আইসিসির কোর্টে। আইসিসিকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে এই সিরিজের ফলাফল সম্পর্কে। কোন খেলোয়াড় করোনা আক্রান্ত না হলেও কোচ সহ দলের চার জন স্টাফ করোনা আক্রান্ত হওয়া আশঙ্কার বিষয় অবশ্যই। আইসিসিকে তাই এই বিষয়টিও মাথায় রাখতে হবে।

ম্যানচেস্টার টেস্ট বাতিল হওয়ায় প্রায় ৫৫০ কোটি টাকা লোকসান হয়েছে ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের। ম্যাচটি করোনার কারণে বাতিল হয়েছে মেনে নেওয়া হলে এক্ষেত্রে বীমার টাকাও পাবেনা ইসিবি। আর সেই কারণেই এ বিষয়ে আরও বেশি মরিয়া তারা। পরবর্তী ক্ষেত্রে যদি ম্যাচটি খেলা হয় অনুমান অনুযায়ী তাহলে ১০০ কোটি টাকা কম ক্ষতি হতে পারে বোর্ডের।

 

Related Articles

Back to top button