টাইমলাইনআন্তর্জাতিক

ভয়াবহ তাপপ্রবাহ ভেঙে দিল চিনের “কোমর”! বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে একের পড় এক কারখানা

বাংলা হান্ট ডেস্ক: বর্তমানে ভয়াবহ তাপপ্রবাহের (Heat Wave) সম্মুখীন হয়েছে চিন (China)। জানা গিয়েছে, এর ফলে ইতিমধ্যেই চিনের সিচুয়ান প্রদেশে প্রবল বিদ্যুৎ বিভ্রাট দেখা দিয়েছে। শুধু তাই নয়, সব কারখানা ছয় দিনের জন্য বন্ধ রাখার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, সিচুয়ান হল সেমিকন্ডাক্টর এবং সৌর প্যানেল শিল্পের জন্য একটি প্রধান উৎপাদন কেন্দ্র। এমতাবস্থায়, অ্যাপল, ফক্সকন ও ইন্টেল সহ বিশ্বের বড় বড় ইলেকট্রনিক্স কোম্পানিগুলি এই বিদ্যুৎ ঘাটতির কারণে প্রত্যক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

এছাড়াও, চিনের এই রাজ্যটি লিথিয়াম খনিরও কেন্দ্র। যা মূলত, বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যাটারিতে ব্যবহৃত হয়। এমতাবস্থায়, এই কাঁচামালের দামও বাড়তে পারে বলে মনে করেছেন বিশেষজ্ঞরা। জানিয়ে রাখি যে, চিন বিগত ৬০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ গ্রীষ্মের মুখোমুখি হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সেদেশে বহু শহরের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রির উপরে চলে গেছে।

পাশাপাশি প্রচণ্ড গরমের কারণে এসির চাহিদাও বাড়ছে হু হু করে। এদিকে, বাড়িতে এসির সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যুতের চাহিদাও বেড়েছে। যার ফলে চাপ বাড়ছে পাওয়ার গ্রিডগুলির উপর। শুধু তাই নয়, ভয়াবহ এই প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে নদ-নদীর জলের স্তরও নিম্নমুখী হওয়ায় জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলি বেশি পরিমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারছে না।

ছয় দিন কারখানা বন্ধ: সিচুয়ান চিনের বৃহত্তম রাজ্যগুলির মধ্যে একটি। সেখানে প্রায় ৮.৪ কোটি মানুষ বসবাস করেন। এমতাবস্থায়, রাজ্যের ২১ টি শহরের মধ্যে ১৯ টিতে সমস্ত কারখানা বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, এই প্রসঙ্গে গত রবিবার কর্তৃপক্ষ একটি জরুরি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, সোমবার থেকে শনিবার পর্যন্ত সব কারখানা বন্ধ রাখতে হবে সেখানে। মূলত, অভ্যন্তরীণ ব্যবহারের জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষেত্রে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। উল্লেখ্য যে, জুলাই মাস থেকেই সিচুয়ান তাপপ্রবাহের মুখোমুখি হয়েছে।

রাত্রিবেলায় নিভিয়ে দেওয়া হচ্ছে রাস্তার আলো: চিনের সরকারি সংবাদমাধ্যমসূত্রে জানা গিয়েছে যে, গত ৭ আগস্ট থেকে ওই রাজ্যে তাপপ্রবাহের রেশ গত ছয় দশকের রেকর্ড ভেঙেছে। এমতাবস্থায়, সিচুয়ান ডেইলি নামের এক সরকারের ওয়েবসাইট অনুসারে জানা গিয়েছে, চিনের এক শীর্ষ কর্মকর্তা সোমবার সতর্ক করে দিয়েছিলেন যে, সিচুয়ান বিদ্যুৎ সরবরাহের সবচেয়ে জটিল এবং ভয়াবহ মুহুর্তের মুখোমুখি হয়েছে। পাশাপাশি, সিচুয়ানের একটি শহর লুঝো, গত সপ্তাহে ঘোষণা করেছে যে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের জন্য রাত্রিবেলা রাস্তার বাতিগুলিও বন্ধ থাকবে।

Related Articles