টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

পঞ্চায়েত ভোট পূর্বে রক্তাক্ত মুর্শিদাবাদ! তৃণমূল নেতা আলতাফ আলিকে পিছন থেকে গুলি করে খুন

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ সামনেই পঞ্চায়েত নির্বাচন (Panchayat Vote)। তার আগেই রক্তাক্ত মুর্শিদাবাদ (Murshidabad)! বাড়ি ফেরার পথে পিছন থেকে গুলি হয়েছিল মুর্শিদাবাদের প্রাক্তন গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান (Former Gram Panchayat Pradhan) তৃণমূল নেতা আলতাফ আলিকে (Altaf Ali)। মঙ্গলবার রাতে মুর্শিদাবাদের ঘটনাটি ঘটে রানিনগরে। বুধবার সকালে হাসপাতালে মৃত্যু হল গুলিবিদ্ধ তৃণমূল নেতার।

রানিনগর থানার ১ নম্বর ব্লকের লোচনপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান আলতাব। জানা গিয়েছে, মঙ্গলবারই মুর্শিদাবাদের লোচনপুর গ্রাম পঞ্চায়েতে তৃণমূলের নতুন প্রধান নির্বাচন পক্রিয়া ছিল। সেখানে প্রধান হিসেবে নির্বাচিত হন তৃণমূল নেতা আলতাব-ঘনিষ্ঠ সোনালি বিবি। এরপরই সেদিন বাড়ি ফেরার পথে আলতাফ আলিকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তড়িঘড়ি তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় মুর্শিদাবাদ মেডিক্যালে। সেখানেই চিকিৎসাধীন ছিলেন আলতাব। কিন্তু শেষরক্ষা হল না। এদিন সকালে মারা গেলেন তিঁনি।

এলাকায় তৃণমূল নেতা হিসেবে যথেষ্ট প্রভাবশালী ছিলেন আলতাফ। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় লালবাগ থেকে মোটরসাইকেল চেপে নিজের বাড়ি ফিরছিলেন তৃণমূল নেতা। সেই সময়ই দুষ্কৃতীরা তাঁকে পিছন থেকে গুলি করে। গুলিবিদ্ধ হলেও প্রাণ ছিল তাঁর। গুরুতর আহত আলতাবকে উদ্ধার করে প্রথম অবস্থায় নিয়ে যাওয়া হয় লালবাগ মহকুমা হাসপাতালে। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এডি সেখানেই শেষ নিঃস্বাস ত্যাগ করেন তিঁনি।

shot dead

হাসপাতাল সূত্রে খবর, বুধবার ভোর ৫টা নাগাদ তাঁর মৃত্যু হয়। তবে কারা খুন করল আলতাফকে! রাজনৈতিক শত্রুতা নাকি অন্য কিছু? এসব প্রশ্নের উত্তর এখনও মেলে নি। তাঁর পরিবারের অভিযোগ রাজনৈতিক শত্রুতার কারণেই প্রাণ হারাতে হল আলতাফকে। তবে কে বা কারা এই ঘটনায় জড়িত রয়েছে, সে বিষয় এখনও স্পষ্ট নয়। মঙ্গলবারই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে স্থানীয় পুলিশ।

Related Articles