টাইমলাইনভারত

পুরোহিত দিয়ে মন্ত্রপাঠ করিয়ে ধুমধাম করে দুই কুকুরের বিয়ে দিলেন মালিক, চলল মদের ফোয়ারাও

বাংলাহান্ট ডেস্ক : বিয়ে হলো এমন একটি বন্ধন যার মাধ্যমে চার হাত এক হয়। কিন্তু এবার চার হাত নয়, বলা যেতে পারে আট হাত এক হয়েছে। পুরোহিত ডেকে মহা ধুমধামের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছে দুই কুকুর। শুনতে অবিশ্বাস্য লাগলেও রীতিমতো লোক খাইয়ে, গান-বাজনা করে দুই পোষ্যের বিয়ে দিলেন বিহারের বাসিন্দা নরেশ সাহানি।

কাল্লু ও বাসন্তী নামক দুই পোষ্যের বিয়েতে ছিল ঢালাও আয়োজন। শাস্ত্রমতে পুরোহিত ডেকে করা হয় এই বিয়ের আয়োজন। এলাহি খাবার, গান বাজনা কোনো কিছুরই অভাব ছিল না। এর পাশাপাশি ছিল সুরাপানের ব্যবস্থা। এমনই এক অদ্ভুত বিয়ের আসরে ভরপুর আনন্দে মাতেন বিহারের মতিহারির মজুরাহ গ্রামের বাসিন্দারা।

নরেশ সাহানি নামক বিহারের একজন জনৈক ব্যক্তির দুই পোষ্যের নাম কাল্লু ও বাসন্তী। ছোট থেকে নিজের হাতে একেবারে সন্তানের মত বড় করেছেন এই দুই কুকুরকে। এবার তাদের বিয়েও দিলেন মহা সমারোহে। সম্পূর্ণ ধর্মীয় আচার বিধি মেনে সাত পাক ঘোরালেন তার সন্তানসম পোষ্যেদের। বিয়ের অনুষ্ঠান দেখতে আসা অতিথিদের জন্য ছিল এলাহি আয়োজন। বসানো হয়েছিল নাচ-গানের আসর। এর সাথে সাথে ছিল হরেক রকম সুস্বাদু খাবার। শুধু এলাকার বাসিন্দাদেরই নয়, ওই এলাকার অন্য সব কুকুরদের খাওয়ানোর ব্যবস্থাও করেন ওই ব্যক্তি।

ওই কুকুরগুলির বিয়ের দায়িত্বে ছিলেন ধর্মেন্দ্র কুমার পান্ডে নামক এক পুরোহিত। তার মন্তব্য, ওই কুকুরগুলো হল ভৈরবরুপী। এই ধরনের বিয়ে দিলে স্খলন হয় পাপ। পূর্ণ হয় মনোবাঞ্ছা। নরেশ বাবুর পাপ কতটা কমলো তা হয়তো সময়ই বলবে কিন্তু এইরকম অপ্রত্যাশিত বিয়ের ভোজ খেয়ে খুশি এলাকাবাসী।

Related Articles

Back to top button