টাইমলাইনবিনোদনভারত

ক্যারাটে-তে জিতেছেন সোনা, গাইতে পারেন আটটি ভাষায়! অনেক গুণই রয়েছে ‘হর হর শম্ভু” খ্যাত অভিলিপ্সার

বাংলা হান্ট ডেস্ক: বর্তমানে শ্রাবণ মাসের আবহে শিবের (Lord Shiva) মন্দিরগুলিতে উপচে পড়ছে ভক্তদের ভিড়। দূর-দূরান্ত থেকে ভক্তরা মনস্কামনা পূরণের উদ্দেশ্যে ছুটে আসছেন ভগবানের কাছে। এমতাবস্থায়, সাম্প্রতিক কালে শিবের একটি জনপ্রিয় গান “হর হর শম্ভু” গেয়েই তীব্র বিতর্কে জড়িয়েছেন গায়িকা ফরমানি নাজ। মূলত, মুসলমান হয়ে শিবের গান গাওয়ায় নিজের ধর্মের মানুষদের কাছ থেকেই তীব্র রোষের মুখে পড়েছেন তিনি। তাঁরা এই ঘটনাটিকে “ইসলাম বিরুদ্ধ” আচরণ হিসেবে মনে করছেন।

এদিকে, এই গান গাওয়ার পরেই সর্বত্র ফরমানি নাজ আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে এলেও ওই গানের আসল গায়িকা কিন্তু তিনি নন। বরং, গানটি যিনি গেয়েছেন তাঁর নাম হল অভিলিপ্সা পান্ডা। বর্তমান সময়ে অভিলিপ্সার এই গানই ঝড় তুলেছে সোশ্যাল মিডিয়ার সমস্ত প্ল্যাটফর্মগুলিতে। এমতাবস্থায়, এই প্রতিবেদনে আমরা অভিলিপ্সার প্রসঙ্গেই বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপিত করছি।

ছোটবেলা থেকেই গান শিখেছেন অভিলিপ্সা পান্ডা: জানিয়ে রাখি যে, “হর হর শম্ভু”-র মূল সংস্করণটি গেয়েছেন অভিলিপ্সা পান্ডা এবং জিতু শর্মা। গানটি মুক্তি পেয়েছে প্রায় ২ মাস আগে। ইতিমধ্যেই এই গানটি তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এমতাবস্থায়, অভিলিপ্সা পান্ডার “হর হর শম্ভু” গানটি গেয়ে লাইমলাইটে এসেছেন ফরমানি নাজ। উল্লেখ্য যে, “হর হর শম্ভু”-র মূল গায়িকা অভিলিপ্সা ছোটবেলা থেকেই গানের তালিম নিচ্ছেন। তিনি একটি সাক্ষাৎকারে তাঁর এই যাত্রা সম্পর্কে আলোকপাত করেন।

এই প্রসঙ্গে অভিলিপ্সা জানান, “আমি উত্তরাধিকার সূত্রে সঙ্গীত ও শিল্পসত্বা পেয়েছি। আমার দাদু-দিদা এবং বাবা-মা সবাই শিল্পের সাথে জড়িত। আমার দাদু পশ্চিম ওড়িশার একজন বিখ্যাত গল্পকার ছিলেন। পাশাপাশি, আমার মা হিন্দুস্তানি ক্লাসিক্যাল ভোকাল এবং ওডিশি নৃত্যেও পারদর্শী। পাশাপাশি আমার বাবাও শিল্পকলার সাথে যুক্ত।”

অভিলিপ্সা পান্ডা কিভাবে গায়িকা হলেন: নিজের গানের কেরিয়ার নিয়ে কথা বলতে গিয়ে অভিলিপ্সা পান্ডা বলেন, “আমার গানের শুরুটা হয় আমার দিদার কাছে। তিনি প্রথমে আমাকে মন্ত্র গাইতে শেখাতেন এবং তারপর যখন আমি সুরে সুরে মন্ত্র গাইতে শুরু করি, তখন আমার পরিবার জানতে পারে যে আমি গানটা পারি। এভাবেই আমার গানের যাত্রা শুরু হয়।” এছাড়াও অভিলিপ্সা জানান, তিনি মোট ৮ টি ভিন্ন ভাষায় গান গাইতে পারেন। পাশাপাশি, তিনি গানকে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথেও দেখেন। তিনি বলেন, সামনে থেকে যেসব কথা তিনি বলতে পারেন না, সেগুলো গানের মাধ্যমে বলার চেষ্টা করেন।

অভিলিপ্সা পান্ডা কাকে তাঁর অনুপ্রেরণা বলে মনে করেন: এই প্রসঙ্গে অভিলিপ্সা জানান, “শিল্পীদের মধ্যে আমি সবাইকে খুব পছন্দ করি। তবে, বর্তমান সময়ে সুনিধি চৌহানের গান খুব ভালো লাগে।” জানিয়ে রাখি যে, মাত্র ৪ বছর বয়স থেকেই গান শিখছেন তিনি। প্রথমে ওড়িশি-শাস্ত্রীয় সঙ্গীত শিখলেও কিছু কারণে তিনি তা চালিয়ে যেতে পারেননি। এর পরে ২০১৫ সালে অভিলিপ্সা একটি প্রতিষ্ঠান থেকে হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সঙ্গীত সম্পর্কে অধ্যয়ন করেন। অভিলিপ্সা পান্ডা জানান, গান গাওয়ার পাশাপাশি তিনি জাতীয় পর্যায়ের ক্যারাটেতেও স্বর্ণপদক জিতেছেন। তাঁর একটা ব্ল্যাক বেল্ট রয়েছে। এছাড়াও, তিনি নাচের প্রতিও অত্যন্ত অনুরক্ত বলেও জানিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button