টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

‘যা বলার ইডিকে বলে দিয়েছি” ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য অর্পিতার! ছড়াল জল্পনা

বাংলাহান্ট ডেস্ক : শুক্রবার আদালতে যাওয়ার আগে জোকা ইএসআই হাসপাতালে শারীরিক পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে (Arpita Mukherjee)। যথারীতি সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় তাঁকে। তিনি জানান সাংবাদিকদের বিশেষ কিছুই বলার নেই তাঁর। অর্পিতা বলেন ‘আমি যা স্টেটমেন্ট দেওয়ার ইডিকেই সব দিয়েছে।’

হাসপাতাল থেকে বেরোনোর পথে তখনও রীতিমতো কাঁদছেন অর্পিতা। চোখে মুখ ভেসে যাচ্ছে জল। কান্নার দমকে বিকৃত হয়ে গিয়েছে মুখ। তার মধ্যেই তাঁকে সম্মুখীন হতে হয় সাংবাদিকদের একের পর এক প্রশ্নের। জবাবে তিনি শিধু বলেন যা জানানোর তিনি তদন্তকারীদেরই জানিয়ে দিয়েছেন। যদিও গত ১২ দিনে পাঁচ বার হাসপাতালে স্বাস্থ্যপরীক্ষা করতে আসা-যাওয়ার পথে প্রত্যেক বারই কিছু না কিছু বলেছেন অর্পিতা। তাই প্রশ্ন উঠছে হঠাৎ করেই মুখে কুলুপ কেন?

গত বুধবারও আদালতে যাওয়ার পথে অর্পিতা কথা বলেন সাংবাদিকদের সঙ্গে। মঙ্গলবার বলেন, ‘টাকা আমার অজান্তে, আমার অনুপস্থিতিতেই ফ্ল্যাটে ঢোকানো হয়েছে।’ তবে শেষ তিন দিনে কী এমন ঘটনা ঘটল যে অর্পিতা একেবারেই নিশ্চুপ হয়ে গেল?

ভালো করে ভাবলে বোঝা যাবে দু’টি ঘটনা ঘটেছে যার অর্পিতা আজ চুপ। প্রথম ঘটনা অর্পিতাকে আদালতে তোলা হয়েছে। দ্বিতীয় ঘটনা, তাঁর সঙ্গে সম্ভবত আইনজীবীদের কথা হয়েছে। জানা যাচ্ছে, আদালতে বুধবারই আইনজীবীরা অর্পিতার সঙ্গে দেখা করার জন্য অনুমতি চেয়েছিলেন। ইডি একজন আইনজীবীকে ১৫ মিনিটের জন্য দেখা করার অনুমতি দেয়। আদালত থেকে বেরোনোর পর পার্থ বা অর্পিতাকে আর কিছুই বলতে শোনা যায়নি। দুজনেই চুপ করে থাকলেন শনিবারও। অর্পিতা কথা কিছু বললেন, কিন্তু আগের মতো আর কোনও বয়ান দিলেন না। বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন এটাই, তবে কি কোনও কারণে আর প্রকাশ্যে ‘বেফাঁস’ মন্তব্য করতে চাইছেন না অর্পিতাও? রাতারাতিই বেশ ‘বুদ্ধিমতী’ হয়ে গেলেন নাকি অর্পিতা মুখোপাধ্যায়?

Related Articles

Back to top button