টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

‘আমিও ২৩ মাস কাস্টেডিতে ছিলাম, ষড়যন্ত্রের কথা তো বলি নি’, পার্থকে খোঁচা মদন মিত্রর

বাংলাহান্ট ডেস্ক : পার্থর ‘ষড়যন্ত্র’ মন্তব্য নিয়ে মুখ খুললেন কামারহাটির বিধায়ক মদন মিত্র (Madan Mitra)। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় ইডির হাতে গ্রেফতার পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee)। সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে ইডি হেফাজতে রয়েছেন তিনি। চলছে জেরা। সম্প্রতি জোকা ইএসআই (Joka ESI) হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে নিয়ে যাওয়া হয় পার্থকে। সেই সময় সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের মুখে পার্থ বলেন, ‘আমি ষড়যন্ত্রের শিকার।’ যদিও কে বা কারা তাঁর বিরুদ্ধে এই ষড়যন্ত্র করলেন সেই প্রশ্নের কোনও উত্তর তিনি দেননি।

তাঁর এই ষড়যন্ত্র মন্তব্য নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে তৃণমূল। পার্থর ওই মন্তব্যের বিরুদ্ধে বিধানসভার উপ মুখ্যসচেক তাপস রায় (Tapas Roy) বলেন, ‘ও হয়তো সারাজীবন কিছু মানুষের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করত, তাই ষড়যন্ত্র শব্দটার সঙ্গে ওর কোনও সম্পর্ক আছে। ষড়যন্ত্র ষড়যন্ত্র না বলে, ও বরং তদন্তকারী সংস্থা বা আদলতকে জানাক।’ এবার এই বিষয় নিয়ে মুখ খুললেন কামারহাটির বিধায়ক মদন মিত্র।

‘মদন’ শ্রীকৃষ্ণের আর এক নাম। আর মহাভারতে শ্রীকৃষ্ণের পরম বন্ধু হলেন পার্থ বা অর্জুন। কিন্তু বাস্তবে বাংলায় পার্থর সঙ্গে মদনের সাপে-নেউলে সম্পর্কই সামনে উঠে আসছে। পার্থর ষড়যন্ত্র প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মদন মিত্র বলেন, ‘তাপস রায় কি বলেছে সে বিষয়ে তো আমি কোনও মন্তব্য করতে পারব না। তাপস রায় একজন অনেক সিনিয়র লিডার। তাপস আজকের ছেলে নয়, তাপস যখন কিছু বলেছে নিশ্চয়ই ভেবেই বলেছে। পার্থ ভেতর থেকে যখন বারবার ষড়যন্ত্র ষড়যন্ত্র বলছে ষড়যন্ত্রটা কার সেটাও বলে দিক। আমিও তো ২৩ মাস কাস্টডিতে ছিলাম আমি তো কখনও বলিনি ষড়যন্ত্র হয়েছে।’

শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে গ্রেফতার হওয়ার পরই পার্থ চট্টোপাধ্যায় দাবি করেন, তিনি চক্রান্তের শিকার। তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হয়েছে। যদিও কে ষড়যন্ত্র করেছে তা তিনি পরিষ্কার করে বলেন নি। তাঁর এই মন্তব্যের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন তাঁরই প্রাক্তন দলের লোকজন। এদিকে পার্থ গ্রেফতার হওয়ার পর থেকেই উদ্ধার হয়েছে তার নামে থাকা বিপুল সম্পত্তি, বিরাট অঙ্কের নগদ টাকা। টলিগঞ্জ আর বেলঘরিয়ার ফ্ল্যাট মিলিয়ে নগদ প্রায় ৫০ কোটি টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। পার্থ ও অর্পিতার নামে থাকা বহু বেআইনি সম্পত্তিরই খোঁজ পাওয়া গেছে। তবে উদ্ধার হওয়া এই টাকার বিষয়ে পার্থ বলেন, ‘আমার কোনও টাকা নেই।’ ওদিকে পার্থ ঘনিষ্ঠ অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের দাবি, ‘আমার অনুপস্থিতিতেই ফ্ল্যাটে এই সব টাকা রাখা হত।’

Related Articles

Back to top button