টাইমলাইনটেক নিউজবিশেষভারতগ্যালারি

সুরাটে তৈরি হচ্ছে ভারতের প্রথম বুলেট ট্রেনের স্টেশন, প্রথমবার প্রকাশ্যে এল ছবি

বাংলাহান্ট ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর স্বপ্নের প্রকল্প ভারতে বুলেট ট্রেন আনা। সেইমত কাজও চলছে জোরকদমে। এবার সামনে এল দেশের প্রথম বুলেট ট্রেন স্টেশনের ছবি। গুজরাটের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর সুরাটের এই স্টেশনের এক ঝলক সামনে আনলেন কেন্দ্রীয় রেল প্রতিমন্ত্রী দর্শনা জারদোশ।

তিনি একটি ট্যুইটে সুরাট বুলেট রেল স্টেশনের কিছু গ্রাফিক্স ছবি প্রকাশ করেন। বৃহস্পতিবার করা এই ট্যুইটটিতে তিনি লেখেন, ‘আপনাদের সবার সঙ্গে সুরাট বুলেট রেল স্টেশনের কিছু গ্রাফিক্যাল পরিবেশনা ভাগ করে নিলাম। সুরাট শহরের গর্ব এই ,অত্যাধুনিক মাল্টি-লেভেল স্টেশনটির সম্মুখভাগ বাইরের দিকে থাকবে এবং স্টেশনের অভ্যন্তরীণ অংশ একটি ঝকঝকে হীরার মতো হবে।’

২০২৪ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা সুরাটের এই স্টেশনটি তৈরির কাজ। ২০১৭ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশে বুলেট ট্রেন প্রকল্পের শিলান্যাস করেন। বলা হয়েছিল যে ২০২৩ সালের মধ্যে ভারতে ৫০৮ কিমি দীর্ঘ বুলেট ট্রেন লাইনের কাজ শেষ করা হবে। কিন্তু বিভিন্ন কারণে এই সময়সীমা আরও দীর্ঘায়িত করা হয়।

৫০৮.১৭ কিলোমিটার লম্বা এই ট্রেন প্রকল্পের মধ্যে ১৫৫.৭৬ কিলোমিটার মহারাষ্ট্রে, ৩৮৪.০৪ কিলোমিটার গুজরাটে এবং ৪.৩ কিলোমিটার দাদরা ও নগর হাভেলিতে অবস্থিত। সুরাট ছাড়াও আরও তিনটি স্টেশন তৈরি করা হচ্ছে ভাপি, বিলিমোরা এবং ভারুচে। আরও স্টেশন বানানো হয়ে মুম্বাই, থানে, ভিরার, বোইসর, ভাদোদরা, আহমেদাবাদ এবং সবরমতীর বান্দ্রা কুরলা কমপ্লেক্সে। এই প্রকল্পের জন্য মোট বরাদ্দ করা হয়েছে ১ লক্ষ কোটি টাকারও বেশি টাকা।

প্রসঙ্গত এই মুম্বাই -আহমেদাবাদ রুটটিই হতে চলেছে ভারতের সর্বপ্রথম বুলেট ট্রেন রুট। এই বিষয়ে হাই স্পিড রেল কর্পোরেশন লিমিটেডের এক আধিকারিক জানান, ‘সুরাট স্টেশনের জন্য চেইনেজ ২৬৪-এ নির্মান শুরু করা হয়েছে। ভারুচ জেলায় চেইনেজ ৩৫৮ থেকে ৩৬০ এর মধ্যে পাইল, পাইল ক্যাপ এবং পিলার বানানোর কাজ চলছে।’

নরেন্দ্র মোদীর স্বপ্নের এই প্রকল্প ঘিরে দেশজুড়ে বিতর্ক নতুন নয়। এই প্রকল্পের জন্য বারবার বিরোধীদের নিন্দা এবং সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে তাঁকে। তবে সেসব কিছুতে পরোয়া না করে যে এগিয়ে গেছেন প্রধানমন্ত্রী এদিন সামনে আসা ছবিগুলি তারই প্রমাণ।

Related Articles