টাইমলাইন

প্রশান্ত কিশোরকে সঙ্গে নিয়ে মোদিকে মাত দেওয়ার প্রস্তুতি কংগ্রেসের! কমিটির কাছে চাওয়া হলো রিপোর্ট

2024 সালের লোকসভা নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে, বিজেপি বিরোধী দলগুলি ততই নিজেদের দলের ভিতরে ঘুটি সাজাতে ব্যস্ত হয়ে উঠছে। স্বভাবতই, কেন্দ্রে বিজেপি সরকারের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস যে নিজেদের অবস্থান দৃঢ় ও সুপ্রতিষ্ঠিত করার জন্য সম্পূর্ণ শক্তি নিয়ে ঝাপানোর পরিকল্পনা করছে, তা বলা বাহুল্য।

গত শনিবার কংগ্রেস দলের অন্তর্বর্তী সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী দিল্লির বাসভবনে একটি জরুরী মিটিং আয়োজন করেন যেখানে কংগ্রেসের একাধিক নেতা যেমন মল্লিকার্জুন খড়্গে, অম্বিকা সোনি থেকে জয়রাম রমেশের এর মতো ব্যক্তিত্বরা হাজির হন। তবে এ সকল নেতাদের উপস্থিতিকে ছাপিয়ে বৈঠকে প্রশান্ত কিশোরের উপস্থিতির দিকে ছিলো সকলের নজর।

সূত্রের খবর, সম্প্রতি একাধিক রাজ্যে বিপুল মাত্রায় পরাজয়ের পর নড়েচড়ে বসেছে কংগ্রেস নেতৃত্ব। সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী একাধিক পদক্ষেপ নিতে চলেছেন বলেও জানা যাচ্ছে। এছাড়াও প্রশান্ত কিশোরকে যুক্ত করার প্রস্তুতি পুরোদমে শুরু করে দিয়েছে দেশের প্রধান বিরোধী দল। এ বিষয়ে কংগ্রেস নেতা রণদীপ সুরজেওয়ালা বলেন, “আমাদের নেত্রী সোনিয়া গান্ধী দ্বারা একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে, যেখানে একাধিক রাজ্যে আগত নির্বাচন এবং 2024 সালে লোকসভা ভোটের জন্য দলের প্রস্তুতি এবং নীতিগত কৌশল নিয়ে আলোচনা করা হবে।”

তিনি আরো বলেন, “সোনিয়া গান্ধী দ্বারা নির্মিত এই কমিটির প্রধান লক্ষ্য হলো, আগামী সকল নির্বাচনের পূর্বে দলের মনোবলকে চাঙ্গা করে তোলা এবং সংগঠন কিভাবে ভবিষ্যতে আরও মজবুত করা যায়, তা সম্পর্কে এক থেকে দু দিনের মধ্যে একটি সুপারিশ জমা করা।”তবে বর্তমানে কংগ্রেসের প্রধান লক্ষ্য যে প্রশান্ত কিশোর হতে চলেছেন, তা কংগ্রেস নেতার কথাতেই স্পষ্ট।

তিনি বলেন, “সোনিয়া গান্ধী বর্তমানে দলের সংগঠনকে আরো মজবুত করার জন্য রাজনৈতিক কৌশলী প্রশান্ত কিশোর সহ দলের একাধিক নেতাদের পরামর্শ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সেই কারণেই গঠন করা হয়েছে এই কমিটি। এটির মাধ্যমে আমাদের লক্ষ্য হল একটি রোডম্যাপ তৈরি করা, যা লোকসভা নির্বাচনে দলকে সাহায্য করবে।”এছাড়াও প্রশান্ত কিশোরের কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার জন্য যে একাধিক বৈঠক হয়ে চলেছে, সে বিষয়ে মত প্রকাশ করেন কংগ্রেস নেতা। সূত্রের খবর, প্রশান্ত কিশোরের সঙ্গে ইতিমধ্যে তিনটি বৈঠক করে ফেলেছে কংগ্রেস, যা সংঘটিত হয়েছে যথাক্রমে 16, 18 এবং 19 শে এপ্রিল।

 

Related Articles

Back to top button