টাইমলাইনভারত

চীনকে চাপে ফেলে এবার শীঘ্রই ভারত পেতে চলেছে UNSC স্থায়ী সদস্যপদ, জানালেন এস জয়শঙ্কর!

বিশ্বের সবথেকে বড়ো রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক পন্ডিত ছিলেন চাণক্য। সেই চাণক্য এর নীতিকে হাতিয়ার করে ভারত তার বিদেশনীতির সবথেকে বড়ো স্বপ্নপূরণের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। UNSC তে ভারত স্থায়ী পদ পাবে কোনো দিন পাবে কিনা সেই নিয়ে বহু সময় থেকে আশঙ্কা করা হয়। কারণ পূর্ব প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর একটা ভুলের কারণে ভারতকে এখন ওই পদের জন্য বিশ্বদরবারে কূটনৈতিক লড়াই করতে হচ্ছে।

তবে ভারতের বর্তমান বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর (Subrahmanyam Jaishankar) সুরক্ষা কাউন্সিলে (UNSC) স্থায়ী পদ পাওয়া নিয়ে বড়ো বিবৃতি দিয়েছেন। রাজ্যসভায় জিজ্ঞাসা করা প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন যে ভারত সুরক্ষা কাউন্সিলের স্থায়ী সদস্যপদের জন্য প্রতিনিয়ত প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে।বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর বলেন, এর মধ্যে ধারাবাহিকভাবে অগ্রগতিও হচ্ছে, এবং মোদি সরকার এই বিষয়ে ধৈর্য, ​​আকাঙ্ক্ষা এবং কঠোর পরিশ্রম করছে।

জয়শঙ্কর বলেন এটা খুবই দীর্ঘ ও ধৈর্যশীল কাজ তবে আমরা অবশ্যই একদিন সেখানে পৌঁছে যাবো।” জানিয়ে দি, আপাতত ভারতীয় কূটনীতিবিদদের এটাই সর্বোচ্চ লক্ষ। জাতিসংঘ সুরক্ষা কাউন্সিল বিশ্বের উপর নিজের নিয়ন্ত্রণ রক্ষা করতে একটা বড়ো ভূমিকা পালন করে। আমেরিকা, চীন, রাশিয়া, ব্রিটেন এবং ফ্রান্স – বর্তমানে এর 5 টি স্থায়ী সদস্য রয়েছে।এই সংস্থাটি জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা বাহিনী, সন্ত্রাসবাদের সংজ্ঞা, সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের জন্য অন্যান্য দেশকে নিষিদ্ধ করার মতো বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়।

এই সংস্থায় থাকা ৫ টি দেশের কাছেই ভিটো শক্তি রয়েছে। অর্থাৎ যদি তাদের মধ্যে কেউ চায় তবে তারা সুরক্ষা কাউন্সিলের অন্য সকলের সর্বসম্মত ভোটের দ্বারা নেওয়া যে কোনও সিদ্ধান্তকে অবরুদ্ধ করতে পারে। পাঁচ সদস্যের মধ্যে চারটি দেশ ভারতকে সদস্য বানাতে সম্মত হয়েছে এবং পৃথক অনুষ্ঠানে এর প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে।তবে একমাত্র চীন সব স্থানে ভারতের বিরোধিতা করেছে। ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর স্থায়ী পদে ভারতকে জায়গা না দেওয়া নিয়ে বহুবার সংঠনকে কড়া ভাষা শুনিয়েছেন।

জয়শঙ্কর বলেছেন স্থায়ী পদে ভারতের উপস্থিত না থাকার অর্থ হলো ওই সগঠনের বিশ্বাসযোগ্যতার উপর প্রশ্নঃ তৈরি হওয়া। ভারতের মতো বিশাল দেশকে বাদ দিয়ে বিশ্বের সুরক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেন এস জয়শঙ্কর। উনি বলেন, যে দেশ ১৫ বছরের মধ্যে সবথেকে বড়ো জনসংখ্যাবহুল দেশে পরিণত হবে এবং যার অর্থব্যাবস্থা বিশ্বের তৃতীয় স্থান দখল করতে চলেছে সেই দেশকে বাদ দিয়ে সংগঠন চলতে পারে না। প্রসঙ্গত জানিয়ে দি, এস জয়শঙ্কর সেই ব্যাক্তি যার রাজনৈতিক জীবন ভারতের স্থায়ী পদ পাওয়ার সাথে সম্পর্কিত।

Back to top button