টাইমলাইনবিনোদন

মায়ের স্মৃতি আঁকড়েই রয়েছেন জাহ্নবী, বনি- শ্রীদেবীর অদেখা ছবি শেয়ার করে আবেগঘন অভিনেত্রী

বাংলাহান্ট ডেস্ক: শ্রীদেবীর (sridevi) মৃত‍্যুর পর কেটে গিয়েছে দীর্ঘ তিন বছর। এখনো মায়ের স্মৃতি সযত্নে আঁকড়ে রেখে দিয়েছেন কন‍্যা জাহ্নবী কাপুর (janhvi kapoor)। মায়ের সঙ্গে কাটানো প্রতিটি মুহূর্তই এখনো তাঁর স্মৃতিপটে উজ্জ্বল হয়ে রয়েছে। শ্রীদেবীর অনুপস্থিতিতে তাঁর স্মৃতিগুলো নিয়েই দিন কাটাচ্ছেন জাহ্নবী।

বারে বারে বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে বা অনুরাগীদের সঙ্গে আলাপচারিতায় শ্রীদেবীর বিভিন্ন স্মৃতি শেয়ার করেছেন মেয়ে জাহ্নবী। এবার মা বাবার একটি অদেখা ছবি শেয়ার করে আবেগঘন হলেন অভিনেত্রী। ব‍্যস্ত শিডিউলের ফাঁকেও সোশ‍্যাল মিডিয়ায় নিয়ম করে ছবি শেয়ার করা বা অনুরাগীদের সঙ্গে যোগাযোগ ঠিকই বজায় রাখেন জাহ্নবী।


সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামে একটি প্রশ্ন উত্তরের খেলায় মেতেছিলেন তিনি। সেখানেই অনুরাগীদের প্রশ্নে নস্টালজিক হয়ে পড়তে দেখা যায় জাহ্নবীকে। এক অনুরাগী প্রশ্ন করেন, জীবনে ঘুরতে যাওয়ার কোন স্মৃতিটা সবথেকে সুন্দর। উত্তরে অভিনেত্রী জানান, কয়েক বছর আগে দক্ষিণ ফ্রান্সের রোড ট্রিপের স্মৃতি সবথেকে সুন্দর তাঁর জীবনে।


মা বাবার সঙ্গে এই ট্রিপে গিয়েছিলেন তিনি। বনি শ্রীদেবীর একটি অদেখা ছবিও শেয়ার করেন জাহ্নবী। তবে এই প্রশ্নোত্তর পর্বে বেশ মজাও করেছেন তিনি। একজন প্রশ্ন করেন, তাঁর ডায়েটের রহস‍্য কি? হাতে আইসক্রিম নিয়ে ছবি শেয়ার করে জাহ্নবী লেখেন, দিনে চার স্কুপ। এটাই তাঁর ডায়েটের রহস‍্য।


গত মাসে শ্রীদেবীর মৃত‍্যুবার্ষিকীতে মায়ের হাতে লেখা একটি অদেখা ছবি শেয়ার করেন অভিনেত্রী। চিঠিতে লেখা, ‘তোমাকে ভালবাসি আমার লাব্বু। তুমি পৃথিবীর সেরা সন্তান।’ পোস্টের ক‍্যাপশনে জাহ্নবী লেখেন, ‘মিস ইউ’।
মাকে স্মরণ করে ছবি শেয়ার করেন শ্রীদেবীর ছোট মেয়ে খুশি কাপুরও। শ্রীদেবী ও বনি কাপুরের একটি পুরনো ছবি শেয়ার করেন তিনি।প্রতি বছরের মতো এবছরও শ্রীদেবীর চেন্নাইয়ের বাড়িতে গিয়ে আচার অনুষ্ঠান করেন বনি জাহ্নবী ও খুশি। অভিনেত্রীর স্মরণে তাঁর চেন্নাইয়ের বাড়িতে পুজো করেন তাঁরা।

২০১৮র ফেব্রুয়ারিতে দুবাইতে এক বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন শ্রীদেবী, বনি ও খুশি কাপুর। সেই সময় ডেবিউ ছবির শুটিংয়ে মুম্বইতে ছিলেন জাহ্নবী। তাই তিনি যেতে পারেননি। এমন সময় আচমকাই আসে শ্রীদেবীর মৃত‍্যু সংবাদ। দুবাইয়ের হোটেলে বাথটবে ডুবে মৃত‍্যু হয় তাঁর।

Related Articles

Back to top button