টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

‘দিল্লি না এসে দলের সংগঠনে নজর দিন’, সুকান্তকে ধমক জেপি নাড্ডার

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ সাম্প্রতিক সময়ে বাংলার শাসক দল হোক কিংবা বিরোধীদল, উভয়পক্ষের নেতা-নেত্রীদের দিল্লি যাওয়া-আসা ক্রমশ বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে। একদিকে যখন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর (Narendra Modi) সঙ্গে বৈঠক সেরেছেন, তো অপরদিকে আবার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari) থেকে শুরু করে বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারও (Sukanta Majumdar) বারংবার ছুটে গিয়েছেন দিল্লি (Delhi)। উদ্দেশ্য একটাই, বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে সাক্ষাৎ। তবে এবার রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের বিরুদ্ধে একপ্রকার কড়া বার্তা শোনালো কেন্দ্র।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারকে একপ্রকার ধমকের সুরে এদিন BJP সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা জানান, “দলের প্রয়োজন কিংবা কমিটির সভা বাদ দিলে আর অন্য কোন কারণে দিল্লিতে আসার প্রয়োজন নেই।” উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে একাধিকবার বিভিন্ন কারণে দিল্লিতে ছুটে গিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী থেকে শুরু করে সুকান্ত মজুমদাররা। তবে তাদের সেই যাতায়াত যে ভালো চোখে দেখছে না কেন্দ্র, তা এদিন এক প্রকার বুঝিয়ে দিলেন নাড্ডা। এদিন সুকান্ত মজুমদারের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জানান, “অধিবেশন শেষ হয়ে গিয়েছে। ফলে দলের প্রয়োজন কিংবা কমিটির সভা না থাকলে দিল্লিতে আসার প্রয়োজন নেই। তার থেকে বরং রাজ্যের সংগঠনের দিকে নজর দিলে তা ভালো হবে।” এছাড়াও গোটা বাংলা জুড়ে আন্দোলন গড়ে তোলার বিষয়েও এদিন সুকান্ত মজুমদারকে নির্দেশ দেন নাড্ডা।

প্রসঙ্গত, সামনেই লোকসভা নির্বাচন। তার আগে বাংলা থেকে ভালো ফল করতে মরিয়া কেন্দ্র। তবে বর্তমানে সংগঠন দুর্বল হওয়ার পাশাপাশি রাজ্য স্তর থেকে একাধিক অভিযোগ উঠে আসছে, যা বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব ভালো চোখে দেখছে না বলেই মনে করা হচ্ছে। এদিন সেটাই একপ্রকার বুঝিয়ে দিলেন জেপি নাড্ডা। সূত্রের খবর, বর্তমানে বাংলা থেকে কেন্দ্রের কাছে একের পর এক অভিযোগ পৌঁছে গিয়েছে। এমনকি, বেশ কয়েকজন দলীয় প্রতিনিধি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে সরাসরি অভিযোগ জানিয়েছেন বলে খবর।

সূত্রের খবর, অভিযোগের বেশিরভাগই বাংলার ক্ষমতাসীন গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে। এক্ষেত্রে নেতা-নেত্রীদের না জানিয়ে দলীয় কর্মসূচি স্থির করা কিংবা বহু সময় কারোর সম্মতি না নিয়ে একতরফা সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ উঠে চলেছে আর সেই সকল সূত্র ধরে এদিন সুকান্তর উদ্দেশ্যে জেপি নাড্ডা একাধিক নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, গত বিধানসভা নির্বাচনে দলের পুরনো নেতৃত্বকে উপযুক্ত সম্মান না দেওয়া এবং তাদের নির্বাচন থেকে দূরে রাখার সিদ্ধান্তই ভুগিয়েছে বিজেপিকে। বর্তমানে সে সকল ভুল শুধরে নিয়ে গোটা বাংলা জুড়ে আন্দোলন গড়ে তোলাই যে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে মূল লক্ষ্য হতে চলেছে, সেটাই এদিন বুঝিয়ে দিলেন নাড্ডা।

Related Articles