টাইমলাইনবিনোদন

‘যখন হারিয়ে গিয়েছিলাম আপনি খুঁজে নিয়েছিলেন’, জন্মতিথিতে ‘গুরু’ স্বামী বিবেকানন্দকে শ্রদ্ধা কঙ্গনার

বাংলাহান্ট ডেস্ক: আজ, ১২ জানুয়ারি স্বামী বিবেকানন্দের (swami vivekananda) জন্মবার্ষিকীতে তাঁকে নিজের ‘গুরু’ (guru) সম্বোধন করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করলেন অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত (kangana ranawat)। জীবনে যে কঠিন সময়টায় তিনি নিজের লক্ষ‍্যের পথ থেকে হারিয়ে গিয়েছিলেন সেই সময় স্বামীজিই তাঁকে ফের সঠিক পথ দেখান বলে মন্তব‍্য করেন কঙ্গনা।

এদিন নিজের টুইটার হ‍্যান্ডেলে একটি টুইট করেন কঙ্গনা। তিনি লেখেন, ‘যখন আমি হারিয়ে গিয়েছিলাম আপনি আমায় খুঁজে নিয়েছিলেন। আমার যখন কোথাও যাওয়ার ছিল না আপনি আমার হাত ধরেছিলেন। যখন জগৎ আমাকে ভুল পথ দেখিয়েছিল, কোনো আশা ছিল না আপনি আমাকে বেঁচে থাকার কারণ জুগিয়েছিলেন। কোনো সত্ত্বা কোনো ঈশ্বর আপনার থেকে বড় নয়, আমার গুরু। আমার সত্ত্বার সমস্তটাই আপনার।’

kangana ranaut on marriage emotionally financially spiritually i should do better with my partner 2 Bangla Hunt Bengali News
পোস্টে হ‍্যাশট‍্যাগ দিয়ে কঙ্গনা লেখেন, ‘জাতীয় যুব।দিবস’। উল্লেখ‍্য, স্বামী বিবেকানন্দর জন্মদিন সারা দেশে জাতীয় যুব দিবস হিসাবে পালিত হয়। কঙ্গনার এই টুইট এখন ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ‍্যাল মিডিয়ায়।

এর আগেও স্বামী বিবেকানন্দর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছিলেন কঙ্গনা। তিনি স্বীকার করেছিলেন, বলিউডে পা দিয়ে অসৎ লোকের পাল্লায় পড়ে মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছিলেন তিনি। সেই সময় স্বামী বিবেকানন্দকে গুরু মেনেই সঠিক পথে ফিরে আসেন কঙ্গনা।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি মধ‍্যপ্রদেশের মুখ‍্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের (shivraj singh chouhan) সঙ্গে দেখা করে লাভ জিহাদ বিরোধী আইন পাশ হওয়া নিয়ে আনন্দ প্রকাশ করেন কঙ্গনা। তাঁর মতে, লাভ জিহাদ আইন বিরোধী পাশ হওয়া খুব দরকার ছিল। এতে মিথ‍্যে বিয়ের সংখ‍্যা কমবে।

আসলে আগামী ছবি ‘ধাকড়’ এর টিমের সঙ্গে মধ‍্যপ্রদেশ গিয়েছেন কঙ্গনা। সেখানে গিয়েই শনিবার মুখ‍্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। এই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে কঙ্গনা জানান, তাঁর মনে হচ্ছিল নিজের পরিবারেরই কোনো সদস‍্যের সঙ্গে দেখা হয়েছে।

লাভ জিহাদ বিরোধী আইন পাশ হওয়া নিয়ে কঙ্গনা বক্তব‍্য, এতে মিথ‍্যে বিয়ে বন্ধ হবে। এই আইনের খুব প্রয়োজন ছিল বলেও জানান অভিনেত্রী। উত্তরপ্রদেশের পর মধ‍্যপ্রদেশে পাশ হয়েছে লাভ জিহাদ বিরোধী আইন। বিয়ের অজুহাতে জোর করে ধর্মান্তকরণের অভিযোগ প্রমাণিত হলে ১০ বছর পর্যন্ত সাজার বিধান রয়েছে এই আইনে।

Back to top button