ভারতরাজনীতি

‘প্রতিপক্ষ হিসেবে কংগ্রেস আর কার্যকরী নয়’, ফের বোমা ফাটালেন কপিল সিব্বল

বাংলা হান্ট ডেস্ক: বর্তমান কংগ্রেস নেতৃত্বের দিকে ফের তোপ দাগলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কপিল সিব্বল (kapil sibal)। ২০১৯ লোকসভা ভোটে কংগ্রেসের ভরাডুবির পর থেকেই বিদ্রোহী হয়ে উঠেছেন কপিল। প্রকাশ্যেই দলের সমালোচনা করেছেন। তাঁকে আবার পাল্টা দিয়েছেন অধীর চৌধুরী, অশোক গেহলটের মতো কংগ্রেস নেতৃত্বরা। তা সত্ত্বেও ফের একবার নিজের দলের বিরুদ্ধেই মুখ খুললেন সিব্বল। এক সাক্ষাৎকারে তিনি দাবি করেছেন, বর্তমানে প্রতিপক্ষ দল হিসেবে কংগ্রেস একেবারেই কার্যকরী নয়।

প্রাক্তন মন্ত্রীর দাবি, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে দলের সংগঠন মজবুত করার কোনও রকম প্রচেষ্টাই করছে নেতৃত্ব। পাশাপাশি রাহুল গান্ধীর কংগ্রেস সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর স্থায়ী কোনও সভাপতি নির্বাচন করা যায়নি। সোনিয়া গান্ধী অন্তর্বর্তী সভানেত্রী হিসেবে কাজ করছেন। প্রায় দেড় বছর কোনও সভাপতি নিযুক্ত না করা নিয়েও সরব তিনি। সিব্বল বলেন, ‘একজন নেতা ছাড়া একটা রাজনৈতিক দল কীভাবে দেড় বছর কাজ করতে পারে। কংগ্রেস কর্মীরা তো জানেনই না তাদের কী করতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘গুজরাটে আমরা আটটি সিটের প্রতিটিতে হেরেছি। সেখানে দলত্যাগী কংগ্রেস নেতাদের ফেলে যাওয়া আসনেও ৬৫ শতাংশ ভোট বিজেপি পেয়েছে। মধ্যপ্রদেশেও একই পরিস্থিতিতে আমরা মাত্র ৮টি আসনে জিতেছি। বিজেপি যখনই সমস্যায় পড়েছে, তখন কিন্তু কংগ্রেস বিকল্প হয়ে উঠতে পারেনি। ফলে বিরোধী হিসেবে আমরা আর কার্যকরী নই। কোথাও একটা ভুল তো হচ্ছেই। সেটা আমাদের ঠিক করতে হবে।’

বর্ষীয়ান এই আইনজীবীর দাবি, তিনি জুলাই মাসে দলের সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এই নিয়ে সওয়াল তুলেছিলেন। এরপর আগস্টে ২৩ জন কংগ্রেস নেতা নেতৃত্বে বদল চেয়ে সোনিয়া গান্ধীকে চিঠিও লেখেন। কিন্তু সেই নিয়ে দলের তরফ থেকে কোনও উত্তর তিনি পাননি বলে জানান সিব্বাল। সম্প্রতি বিহার বিধানসভা নির্বাচনের পর ফের কংগ্রেসের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলেন প্রাক্তন আইনমন্ত্রী। যদিও তখন অশোক গেহলট পাল্টা ট্যুইট করে লেখেন, ‘দলের ভিতরের কথা কপিল সিব্বলের সংবাদমাধ্যমের কাছে বলা উচিত নয়। এই ধরণের কাজে দলের সাধারন কর্মীরা আশাহত হন।’

Back to top button