টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গভারত

ব্যবহৃত জামা কাপড় দিনে অন্তত ৩-৪ ঘণ্টা রৌদ্রে রাখুন, তাহলে অনেক জীবাণু মারা যাবেঃ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ করোনা (COVID-19) পরিস্থিতি নিয়ে সমগ্র বিশ্ব এখন চিন্তিত। ভারতে (india) লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এই পরিস্থিতিতে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূলের ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee) নাগরিকদের উদ্যেশ্যে তাঁর বার্তা দিলেন। এই লকডাউনের পরিস্থিতিতে কিভাবে মানুষজন বাড়িতে থাকবেন, সময় কাটাবেন এবং সবথেকে প্রয়োজনীয় কিভাবে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে গিয়ে নিজেকে সুস্থ রাখবেন তা নিয়ে বক্তব্য পেশ করলেন।

How to Prevent Corona by Abhishek Banerjee Bangla Hunt Bengali News

করোনা মোকাবিলায় অভিষেক পরামর্শ দিলেন, ‘লকডাউনের সময় অনেকেই একই জামাকাপড় তিন চার দিন ধরে পড়ছেন। যদি আপনারা এখন জামা কাপড় না কাঁচতে পারেন, তাহলে ব্যবহার করা জামা কাপড় দিনে অন্তত ৩-৪ ঘণ্টা সূর্যের আলোতে রেখে দিন। সূর্যের আলোয় অনেক জীবাণু মারা যায়। তাই যে বালিষ, বিছানার চাদর এবং জামা কাপড় ব্যবহার করছে, তা অন্তত দিনে ২-৩ ঘন্টা রৌদ্রে রেখে দিন। তাতে করে অনেক জীবাণু শেষ হয়ে যাবে’।

রোজকার ব্যবহৃত জিনিসের পর তিনি নাগরিকদের খাবারের বিষয়েও পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, ‘রোজকার খাবারের মধ্যে একটু প্রোটিন যুক্ত ডাল খেতে পারেন। প্রোটিন জাতীয় জিনিস বেশি করে খেতে হবে, ডিমও খাওয়া যেতে পারে’।

5708631471 06fed03518 o 1500x1125 1 Bangla Hunt Bengali News

এর পাশাপাশি বাড়ির বয়স্ক মানুষদের জন্য বলেন, ‘৫০-৫৫ বছরের বেশি বয়স্ক মানুষ যাদের হার্টের সমস্যা বা শ্বাসকষ্টের রোগ আছে, তারা এখন একদমই বাইরে বেরোবেন না। কারণ, করোনা ভাইরাসে সবথেকে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন ৫৫ বছর বয়সের বেশি মানুষ। তাঁদের উপর যেহেতু সংক্রমণের প্রভাব বেশি থাকে, তাই তাঁদের একটু সচেতন থাকতে হবে এখন। বাড়ির অন্যান্য সদস্যরাও অন্য কারো সঙ্গে কথা বলার সময় সচেতন থাকবেন। দূরত্ব বজায় রেখে হ্যান্ডসেকের বদলে হাতজোড় করে নমস্কার করুন’।

এছাড়াও কোন জিনিস ধরার আগে তা ভালো করে ধুয়ে নেবেন। জলের কল থেকে জল নেওয়ার আগে কলটা ভালো করে ধুয়ে নিন। এমনকি মোবাইল ফোনও ভালো ভাবে পরিস্কার রাখুন। সম্ভব হলে লাউড স্পিকার অন করে ফোনে কথা বলুন আবার ঘরের লাইটের সুইচ আঙ্গুলের বদলে আঙ্গুলের গাট দিয়ে জ্বালানোর চেষ্টা করুন। রোগ লুকিয়ে রাখা একদম ঠিক নয়। রোগ লুকিয়ে না রেখে তাঁর থেকে মুক্তির পথ খুঁজতে হবে। সবাইকে সুরক্ষিত এবং সচেতন থাকতে হবে।

Back to top button