টাইমলাইনবিনোদন

রেশ রয়ে যায়, বিজয়ার শেষে মল্লিকবাড়ির দূর্গাপুজোর না দেখা ছবি শেয়ার করলেন কোয়েল

বাংলাহান্ট ডেস্ক: পুজো আসবে আসবেই ভাল, এসে গেলেই শেষ। বিশেষ করে যাদের বাড়িতে দূর্গাপুজো হয় তারা যেন আরো বেশি করে উপলব্ধি করেন এই কথাটা। কলকাতার বনেদি বাড়ির পুজোর অন‍্যতম মল্লিক বাড়ির পুজো, যার অন‍্যতম আকর্ষণ রঞ্জিত মল্লিক ও তাঁর মেয়ে কোয়েল মল্লিক (koel mallick)। বহু পুরনো এই পুজোকে ঘিরে টলিপাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আমজনতার মধ‍্যেও উন্মাদনা কম নেই। প্রতি বছর মল্লিক বাড়িতে ভিড় জমান দর্শনার্থীরা।

করোনা আবহে এবারে পুজো হলেও ভিড়ভাট্টা ছিল অনেক কম। পুজোর কটাদিন উমার সঙ্গে সঙ্গে নিজেও বাপের বাড়িতেও কাটিয়েছেন কোয়েল। সঙ্গে ছিলেন বাড়ির জামাই নিসপাল সিং রানে ও অভিনেত্রীর শ্বশুর শাশুড়িও। পরিবারের সব সদস‍্যদের নিয়ে হই হুল্লোড় করে কোথা দিয়ে যেন পাঁচটা দিন কেটে গেল বোঝাই গেল না।


পুজো শেষ হয়ে গেলেও সেই রেশ থেকে এখনো বেরোতে পারেননি কোয়েল। তাই নতুন করে মল্লিক বাড়ির পুজোর আরো কয়েকটি ছবি শেয়ার করে নিলেন তিনি। কোনোটায় মায়ের সঙ্গে প্রদীপ জ্বালাতে দেখা যাচ্ছে তাঁকে, কোনোটায় শাঁখ বাজাচ্ছেন। আবার কখনো বন্ধুবান্ধব, আত্মীয় স্বজনদের সঙ্গে আডা, হাসিতে মজে থাকার ছবি শেয়ার করেছেন কোয়েল।

আসলে এই কটাদিন নায়িকা সুলভ হাবভাব ছেড়ে ঘরের মেয়ে হয়ে ওঠেন কোয়েল। দূর্গাপুজোর অষ্টমীর দিন শ্বশুরবাড়ি ও বাপের বাড়ির পরিবারকে একসঙ্গে নিয়ে ক‍্যামেরাবন্দি হন কোয়েল। স্বামী নিসপাল সিং রানে ও ছেলে কবীরকে নিয়ে ঠাকুর দালানে বসে অভিনেত্রী। সঙ্গে দেখা মিলল রঞ্জিত মল্লিক, দীপা মল্লিক এবং কোয়েলের শ্বশুর শাশুড়িরও।

দশমীতে প্রতিবারের মতো এবারেও সিঁদুর খেলায় মেতেছিলেন তিনি। ঘরের আরেক মেয়েকে বরন করে বিদায়ও জানিয়েছেন। বরনের একটি ভিডিও ও কয়েকটি ছবি শেয়ার করেছেন কোয়েল। লাল টুকটুকে শাড়ি, হালকা গয়নায় সেজে মা কে বরন করেন তিনি। সেই সিঁদুরের ছোঁয়া ঠেকান নিজের সিঁথিতেও। অনুরাগীদের উদ্দেশে বিজয়ার শুভেচ্ছা জানিয়ে কোয়েল বলেন, দশমী মন খারাপের ঠিকই। আরো এক বছরের।অপেক্ষা শুরু হল। আসছে বছর আবার হবে।

Related Articles

Back to top button