টাইমলাইনভারত

নারী দেখলেই চলে কামড়, অশালীন অঙ্গভঙ্গি! মদে আসক্ত বাঁদর ‘কালিয়ার’ ‘আজীবন কারাদণ্ড’

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ অপরাধ যে প্রকারেরই হোক, অপরাধ করলে অপরাধীকে শাস্তি পেতে হবে এটাই গণতান্ত্রিক সমাজের নিয়ম। তবে অপরাধের সাজা কি কেবল মাত্র মানব জাতির ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য? এমনটা যদি ভেবে থাকেন তবে এক্কেবারেই ভূল ভাবছেন। তাহলে শুনুন ‘ কালিয়া ‘ নামের এক বাঁদরের কাহিনী।

উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh ) মির্জাপুরে (Mirzapur) কালিয়া (Kaliya) নামের এক বাঁদর (Monkey) প্রায় ২৫০ জনকে আহত করেছে। শুধু তাই নয়, বাঁদর হয়েও কালিয়া অ্যালকোহল এবং আমিষের শৌখিন এবং মহিলাদের দেখলেই ছুটে গিয়ে করে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি। আর এসব দোষের বর্তমানে কালিয়া কানপুরের চিড়িয়াখানায় (Kanpur Zoo)’আজীবন কারাদণ্ড’ (Life time Imprisonment) ভোগ করছেন। শাস্তি দিতে এই বাঁদরকে ধরে মির্জাপুর থেকে কানপুরে আনা হয়।

প্রায় পাঁচ বছর আগে মির্জাপুরে কালিয়া নামের এই বাঁদর ব্যাপক ত্রাস সৃষ্টি করেছিল। নারী ও শিশুদের দেখলেই কামড়াতে দৌড়াত। কোনো পুরুষ নয়! শুধুমাত্র নারী ও শিশুরাই তার শিকারে পরিণত হয়েছে । এই কালিয়া এখনো পর্যন্ত প্রায় ২৫০ জন মহিলা ও শিশুকে আহত করেছে।

দীর্ঘ ৫ বছর ধরে কালিয়া কানপুর চিড়িয়াখানায় খাঁচায় বন্দী। কিন্তু শোধরাতে পারেনি নিজেকে।
এখনো তার আচরণে কোনও পরিবর্তন নেই। সুযোগ পেলেই এখনও সে আক্রমণ করতে দৌড়ায়। নারীদের দেখলেই শুরু করে অশালীন অঙ্গভঙ্গি এবং নিজ মনেই বকবক করতে থাকে। আর এই কারণেই এখনো কালিয়ার শাস্তি বহাল।

কানপুর চিড়িয়াখানায় বহু অশান্ত বাঁদর তালাবদ্ধ রয়েছে, চিড়িয়াখানা কর্তৃক যেগুলিকে এখন মুক্তি দেওয়ার জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে কিন্তু কালিয়াকে কখনো মুক্তি দেওয়া হবে না, আজীবন বন্দী অবস্থায়ই জীবন কাটবে তার। বহাল থাকবে ‘আজীবন কারাদণ্ড’।

Related Articles