fbpx
কলকাতাটাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গভারতরাজনীতি

“নরেন্দ্র মোদী পাকিস্থানের অ্যাম্বাসাডর!” মোদীকে কটাক্ষ মমতার

এনআরসি নিয়ে শাসক দল ও বিরোধী দলগুলির মধ্যে চাপানউতোর চলছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী থেকে শুরু করে  বিজেপির প্রায় সকল নেতারা বলছেন সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে যারা আন্দোলন করছে, তারা পাকিস্তান নিয়ে কোনও কথা বলছেন না। কেন চুপ করে আছেন। শুক্রবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নরেন্দ্র মোদীর আগেরদিনের বক্তব্যকে নিশানা করেন।

এদিন শিলিগুড়িতে মুখ্যমন্ত্রী র এনআরসি র বিরুদ্ধে মিছিল ছিল। এদিন মমতা বলেন, “কিছু বললেই পাকিস্তানে চলে যাওয়ার কথা বলছে। বলছে পাকিস্থান এর কথা কেন বলছিনা? আরে পাকিস্তানের কথা কেন বলব? হিন্দুস্থানের কথা বলব।” তিনি বিদ্রুপ করে বলেন” আপনি পাকিস্তানের অ্যাম্বাসাডর নাকি? নিজের দেশকে নিয়ে কোনও কথা নেই। শুধু পাকিস্তান নিয়ে কথা।” এদিন মমতা বলেন, “প্রশ্ন করছি খাবার কই? চাকরি কই? নাগরিকত্ব কই? বলছে পাকিস্তানে চলে যাও। কেন যাব? এটা আমাদের দেশ। এই দেশে থেকে কেউ কোথাও যাবেনা ।” তিনি আরও বলেন, “ভারত এত বড় গণতন্ত্রের দেশ। স্বাধীনতার এত বছর পরে আমাদের নাগরিকত্ব প্রমাণ করতে হবে? এটা মানবতার লজ্জা! এর থেকে লজ্জার কিছু হতে পারেনা।”

বিদ্বজনদের মতে, পাকিস্তানের সঙ্গে বিরোধীদের জুড়ে দিয়ে বিজেপি নেতৃত্ব যে ধর্মীয় মেরুকরণের  বাতাবরণ তৈরি করেছে  তাকেই আরও জোরালো করলেন মোদী। এদিন মমতা তার বিরুদ্ধেই সুর চড়ালেন। বোঝাতে চাইলেন, বিজেপি আসলে সাধারণ মানুষের আশু সমস্যাগুলি থেকে নজর ঘোরাতেই বারবার পাকিস্তানের কথা টেনে আনে। নিজের দেশ নিয়ে কোনও মাথাব্যথাই কেন্দ্রিয় সরকারের নেই।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী আরও একবার স্পষ্ট করে জানিয়ে দেন, বাংলায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনপিআর কোনওটাই বাস্তবায়িত হতে দেবেন না। তাঁর পরবর্তী কর্মসূচীতে ঠিক হয়েছে আগামী ৯ জানুয়ারি বারাসত থেকে মধ্যমগ্রাম চৌমাথা পর্যন্ত মিছিল করা হবে।

Close
Close