fbpx
টাইমলাইনভাইরাল

বন্ধুর স্ত্রীকে গর্ভবর্তী করতে হবে, ৭৭ বারের চেষ্টাতেও ব্যর্থ এই ব্যক্তি!

বাংলাহান্ট ডেস্ক: মোট ৭৭ বার চেষ্টা করেও স্ত্রীকে গর্ভবতী করতে ব্যর্থ হলেন এক ব্যক্তি। তবে নিজের স্ত্রীকে নয়, বন্ধুর স্ত্রীকে। হ্যাঁ ঠিকই পড়েছেন। আপাতদৃষ্টিতে বিষয়টা অস্বস্তিজনক হলেও এতে পুরোপুরি সায় ছিল ওই মহিলার স্বামীর।

ব্যাপারটা খুলেই বলা যাক তাহলে। এই ঘটনা আসলে তানজানিয়ার। মহিলার স্বামী একজন পুলিসকর্মী। নাম দারিয়াস মাকামবাকো। বিয়ের ৬ বছর পরও কোনও সন্তান স্ত্রীকে দিতে পারেননি তিনি। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন দারিয়াস বন্ধ্যা। অর্থাৎ সন্তান দেওয়ার ক্ষমতা তাঁর নেই। এর জন্য বেশ মনোকষ্টে ভুগতেন দম্পতি। অবশেষে মাথা খাটিয়ে এক অভিনব উপায় বের করলেন স্বামী। নিজের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ইভান্স মাস্তানোর কাছে হাত পাতলেন তিনি। দাবি নিজের বীর্যে স্ত্রীকে সন্তান এনে দিতে হবে।

জানা গিয়েছে, এর জন্য বন্ধুকে শর্তও দিয়েছিলেন দারিয়াস। আগামী ১০ মাস সপ্তাহে অন্তত তিনবার করে যৌন মিলন করতে হবে তাঁর স্ত্রীয়ের সঙ্গে। তবে এমনি এমনি নয়, কড়কড়ে ২০ লক্ষ তানজানিয়ান শিলিংয়ের বিনিময়েই এই ‘লড়াই’য়ে নামতে রাজি হন ইভান্স। সন্তানের আকাঙ্কায় স্বামীর এমন উদ্ভট পন্থায় রাজিও হয়ে গিয়েছিলেন স্ত্রী। কিন্তু সেই স্বপ্ন আর পূরণ হল না। এক বার দুবার নয়, ৭৭ বারের চেষ্টাতেও ব্যর্থ হলেন ইভান্স। বন্ধুর স্ত্রীকে অন্তঃসত্বা আর তাঁর করা হয়ে উঠল না। শেষে রেগেমেগে বন্ধুর বিরুদ্ধে পুলিসে অভিযোগ দায়ের করেছেন ক্ষুব্ধ দারিয়াস।

তবে কী এমন হল যে ইভান্সও ব্যর্থ হলেন বন্ধুর স্ত্রীকে সন্তান এনে দিতে। চিকিৎসকরা জানান, বন্ধুর মতো ইভান্সও নাকি বন্ধ্যা। কিন্তু তা কীকরে হয়?  ইভান্সের নিজের দুটো সন্তানও রয়েছে। তখন প্রকাশ্যে এল আসল খবর। বাধ্য হয়ে ইভান্সের স্ত্রী জানান, দুই সন্তান আসলে তাঁর স্বামীর নয়, বরং তাঁর ভাইয়ের। দারিয়াস অবশ্য এইসব বিষয়ে মাথা ঘামাতে রাজি নন। তাঁর দাবি টাকা ফেরত দিতে হবে বন্ধুকে। এদিকে ইভান্সের বক্তব্য, তিনি তো কোনও গ্যারান্টি দেননি। তাই টাকা ফেরত দেওয়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না।

Back to top button
Close
Close