টাইমলাইনবিনোদনভারত

হিন্দু ধর্ম ও কন্যাদানের সংস্কৃতিকে আঘাতের অভিযোগ! আলিয়া ভাটের বিজ্ঞাপন নিয়ে তুমুল বিতর্ক

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ পোশাক কোম্পানি মান্যবর (Manyavar) তাঁদের একটি বিজ্ঞাপনে হিন্দু সংস্কৃতি আর রীতিনীতিকে গোঁড়া চিন্তাভাবনা দেখিয়ে বিতর্কে উঠে এসেছে। ওই বিজ্ঞাপনে আলিয়া ভাটও (Alia Bhatt) রয়েছেন, আর সেই বিজ্ঞাপনে বিয়ের সময় হওয়া ‘কন্যাদান”কে দমনকারী সংস্কৃতি হিসেবে দেখানো হয়েছে এবং তাতে কন্যাদানের বদলে ‘কন্যামান” নামের একটি বিকল্প প্রথা শুরু করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

মান্যবরের মতে, এরফলে পুরনো সংস্কৃতিকে দূরে সরিয়ে রেখে নতুন কিছু ভাবনা এনে সমাজ বদলানো যাবে। সংস্থার বিজ্ঞাপন অনুযায়ী, নতুন এই তৈরি হওয়া কন্যামান প্রথা বিয়েকে একটি নতুন চিন্তা ভাবনার দিকে নিয়ে যাবে আর দানের বদলে কন্যার সম্মান করার বিচারধারা ফুটে উঠবে।

কন্যাদান এবং হিন্দু সংস্কৃতির বিরুদ্ধে মান্যবরের এই অভিযান নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় তুমুল সমালোচনা হচ্ছে। নেটিজেনরা সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেদের মত প্রকাশ করে হিন্দু ধর্মকে আঘাত করার অভিযোগ তুলেছে আলিয়া এবং মান্যবরের বিরুদ্ধে। নেটিজেনরা বারবার বিভিন্ন বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে হিন্দু ধর্মের অপমান করারও অভিযোগ তুলেছে।

এছাড়াও নেটিজেনরা এটাও অভিযোগ করেছে যে, নিকাহ, হালালা, আর তিন তালেকের মতো কুপ্রথার বিরুদ্ধে এরকম কোনও বিজ্ঞাপন বা সচেতননা ছড়ানো হয় না। বড় থেকে ছোট সব সংস্থাই শুধুমাত্র হিন্দু ধর্মকে আঘাত করে একের পর এক বিজ্ঞাপন করে চলেছে। তাঁদের মতে, এই সব সংস্থা হিন্দু সংস্কৃতির বিরুদ্ধে ধর্মযুদ্ধ শুরু করেছে।

সোশ্যাল মিডিয়ার ইউজাররা এই বিজ্ঞাপনে আলিয়া ভাট থাকার কারণে ভাট পরিবারকেও নিশানায় নিয়েছে। অনেকে ভাট পরিবারের অন্যতম সদস্য তথা পরিচালক মহেশ ভাটের পুরনো কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন। যেখানে মহেশ ভাট তাঁর মেয়ে পূজা ভাটকে নিয়ে বলেছিলেন যে, ‘পূজা আমার মেয়ে না হলে ওকে বিয়ে করে নিতাম।

Related Articles

Back to top button