টাইমলাইনভারত

চারবারের বিধায়ক হয়েও নেই গাড়ি-বাড়ি, ব্যাংক ব্যালেন্স! বিহারে সবচেয়ে বেশি ভোটে জিতেছেন ইনি

বিহারের  (bihar) বিধায়ক মেহবুব আলম (mehboob alam) যেন এক ভিনগ্রহের বাসিন্দা। একবারের কাউন্সিলার বা পঞ্চায়েত সদস্য হয়ে অনেকেই যেখানে টাকার কুমির হয়ে বসেন, সেখানে চারবার জিতেও তার বাড়ি পাকা নয়, কিছু কৃষি জমি ছাড়া কোনো সম্পত্তিও নেই তার। ভোটের হলফ নামা অনুসারে তার সম্পত্তি শূন্য। অর্থ বলতে কিছু নেই, দিন আনি দিন খাইয়ের সংসার। তবে এত অভাব সত্ত্বেও তার যেটার অভাব নেই তা হল সম্মানের। সততাকে পুঁজি করেই তিনি এই মুহুর্তে বিহারের সবচেয়ে বেশি ভোটে জেতা বিধায়ক।

জনপ্রতিনিধি বলতে তিনি বোঝেন যিনি মানুষের হয়ে কাজ করা। তাদের করের টাকা আত্মসাৎ করে গাড়ি বাড়ি হাঁকানো নয়। ভারতীয় রাজনীতিতে তিনি এক বিরল মানুষ। সিপিআই এর এই বিধায়ক কাছের মানুষ, কাজের মানুষ। তিনি বিহারের অহংকার। ভারতীয় রাজনীতির সততার প্রতীক।

৪৪ বছরের মেহমুদ মাধ্যমিক পাশ। জনপ্রতিনিধি হয়েও তিনি করেন চাষের কাজ। চার চাকা তো দূর অস্ত, দুই চাকার কথাও ভাবতে পারেন না তিনি। বিধানসভা নির্বাচনে বলরামপুর থেকে থেকে ৫৩ হাজারেরও বেশি ভোট ব্যবধানে জিতেছেন মেহেবুব। যা এবারের বিধানসভা নির্বাচনে সবচেয়ে বড় ব্যাবধানে জয়।

রাজনীতি মানেই এখন অনেক মানুষের কাছে এক কদর্য স্থান, রাজনীতিবিদদের নানান চুরি দেখে অনেকেই ভরসা হারিয়েছেন রাজনীতিতে। তাদের কাছেই ভরসার আরেক নাম মেহবুব আলম। দারিদ্রকে সঙ্গী করেই তিনি করে চলেছেন জনসেবা। রাজনৈতিক নেতা হয়েও যে দুর্নীতির কাদা ছোঁড়াছুড়ি থেকে আলাদা হয়েও জনসেবা করা যায়। দেশবাসীর কাছে তিনি তারই প্রমাণ। তাকে দেখেই ভবিষ্যতে সৎ ও সুস্থ রাজনীতির পথ পাবে আগামী প্রজন্ম। তিনি ভারতীয় রাজনীতির রোলমডেল।

 

Back to top button