fbpx
টাইমলাইনভারত

গরীবদের বিনামূল্যে রান্নার গ্যাস দেবার সিদ্ধান্ত নরেন্দ্র মোদির, মধ্যবিত্তের জন্যও রয়েছে পরিকল্পনা

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ লকডাউনের পরিস্থিতিতে দেশের গরীব মানুষের জন্য মোদী সরকার ১.7 লক্ষ কোটি টাকার ত্রাণ প্যাকেজ ঘোষনা করেছে। যার একটি অংশ হ’ল উজ্জ্বলা যোজনার আওতায় কেন্দ্রীয় সরকার বিনামূল্যে এলপিজি সিলিন্ডার সরবরাহ। এই প্রকল্পের আওতায় নিবন্ধিত মহিলারাই কেবল এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। যাদের মোবাইল নম্বর গ্যাস সংস্থায় নিবন্ধিত রয়েছে, কেবল তারা এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন বলে জানানো হয়েছে।

ইতিমধ্যেই সরকার সিলিন্ডার সরবরাহও শুরু করেছে। উজ্জ্বলা প্রকল্পের আওতায় প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনায় ১৪.২ কেজি মাত্র তিনটি এলপিজি সিলিন্ডার দেওয়া হবে। প্রতি মাসে বিনামূল্যে একটি সিলিন্ডার পাবেন গ্রাহকেরা। যাদের ৫ কেজি সিলিন্ডার রয়েছে তাদের ৩ মাসের মধ্যে মোট ৮ টি সিলিন্ডার দেওয়া হবে। অর্থাত্, এক মাসে সর্বাধিক ৩ সিলিন্ডার বিনামূল্যে থাকবে।

পাশাপাশি, ২০১৪ সালের পর ২০২০ অর্থবছরের শুরুতে সর্বনিম্ন হল প্রাকৃতিক গ্যাস। দেশে উৎপাদিত প্রাকৃতিক গ্যাসের বিক্রয় মূল্য ২৬ শতাংশ কমানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যার জেরে এক ধাক্কায় অনেক খানি কমে যাবে গ্যাসের দাম। তবে এর জেরে রিলায়েন্স, ওএনজিসির মতো গ্যাস উত্পাদনকারী সংস্থাগুলির আয় ব্যাপক পরিমাণে হ্রাস করবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ভারতের পেট্রোলিয়াম মন্ত্রকের পরিকল্পনা ও বিশ্লেষণ সেল (পিপিএসি) জানিয়েছে যে ভারতে বর্তমান গ্যাস উৎপাদনের বড় অংশের ব্যয় এখন এপ্রিল থেকে পরবর্তী ছয় মাসের জন্য প্রতি মিলিয়ন ব্রিটিশ থার্মাল ইউনিট (এমএমবিটিটু) প্রতি ২.৯৯ ডলার হবে। গতকাল পর্যন্ত এই দাম ছিল মিলিয়ন ব্রিটিশ থার্মাল ইউনিট প্রতি $ 3.23।

প্রসঙ্গত, প্রাকৃতিক গ্যাসের দাম প্রতি বছর 1 এপ্রিল এবং অক্টোবর 1 তারিখে নির্ধারিত হয়। প্রাকৃতিক গ্যাস সার এবং বিদ্যুৎ উত্পাদনে ব্যবহৃত হয়। এটি সিএনজি তৈরিতেও ব্যবহৃত হয়, যা যানবাহনের জ্বালানী হিসাবে ব্যবহৃত হয়। পাশাপাশি রান্নার গ্যাস হিসাবেও এটি সরবরাহ করা হয়।

পাশাপাশি, ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশনের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে একজন গ্রাহক ১৫ দিনের ব্যবধান ছাড়া সিলিন্ডার বুক করতে পারবেন না। অর্থাৎ একবার বুকিং করার ১৫ দিন পর আবার নতুন বুকিং করতে পারবেন গ্রাহকরা।

সম্প্রতি ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশনের ম্যানেজার সঞ্জীব সিং জানিয়েছিলেন, “এইভাবে গ্যাস সিলিন্ডার বুক করতে থাকলে পুরো ব্যবস্থার ওপর চাপ পড়ে যাবে। বুকিং হওয়ার সাথে সাথে গ্যাস সিলিন্ডার ভর্তি করার জন্য কারখানাকে জানাতে হয়। আর তারপর সেখান থেকেই গ্যাস সিলিন্ডার সরবরাহের কাজ শুরু হয়। এরপর ডেলিভারি বয়রা বাড়ি বাড়ি গিয়ে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার সরবরাহ করে থাকেন।”

Back to top button
Close
Close