টাইমলাইনভারত

আমার দাদু গালওয়ান ঘাঁটি আবিষ্কার করেছিলেন, চীন মিথ্যাবাদী: মহম্মদ আমীন গালওয়ান, ভারতীয়

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ ১৫ ই জুন রাতে গালওয়ান ঘাঁটিতে চলেছে ভারত-চিন সংঘর্ষ। আর তাতে শহিদ হয়েছেন ২০ জন ভারতীয় সেনা (indian army)। এখন প্রশ্ন লাদাখের গালওয়ান উপত্যকা কার? এই নিয়ে চলছে ভারত-চিন সংঘর্ষ। এই ঘাঁটিকে চিনের অংশ বলে দাবি করেছে বেজিং। অন্যদিকে, এলএসির কাছে চিনের আচমকা হামলার বদলা নিতে প্রস্তুত ভারতও। ২০ জন বীর জওয়ান ভারত ভূমিতেই শহীদ হয়েছেন বলে সুর চড়িয়েছেন রাজনৈতিক নেতারা।

বর্তমানে গালওয়ানের উপর চিনের মালিকানা ফলানোর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মহম্মদ আমীন গালওয়ান বলেন ,“গালওয়ান প্রথম থেকেই ভারতের অংশ ছিল এবং তাই থাকা উচিৎ। ওই উপত্যকা থেকে চিনা সৈন্যদের সাফ করা উচিৎ ভারতীয় সেনার”।

কিন্তু এখন প্রশ্ন কে এই মহম্মদ আমীন গালওয়ান? ইন্ডিয়া টুডে টিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ওই ব্যক্তি বলেন, “আমার ঠাকুরদা রাসুল গালওয়ান ১৮৯০ সালে ওই ঘাঁটি আবিষ্কার করেছিলেন। তাঁর নাম থেকেই ওই উপত্যকার নাম রাখা হয় গালওয়ান উপত্যকা”।

তিনি বলেন, “প্রথম থেকেই এই গালওয়ান ভ্যালি ভারতের অন্তর্গত। চিনারা এখন মিথ্যে দাবি করছে”। গালওয়ান ভ্যালিওর ইতিহাস তুলে ধরে তিনি জানান, ১৯৮০ থেকে ৯৩ সালে তাঁর দাদু রাসুল গালওয়ান ট্রেক করে ওই উপত্যকা আবিষ্কার করেন। শুধু তাই নয়, পথহারা ব্রিটিশদের পরিব্রাজকদের জন্য রাস্তা তৈরি করে তাঁদেরকে গন্তব্যে পৌঁছতেও সাহায্য করেছিলেন তিনি। এরপরেই ব্রিটিশরা রাসুল গালওয়ানের নামানুসারে উপত্যকার নাম রাখেন গালওয়ান ভ্যালি।

উল্লেখ্য, গত ১৫ জুন পূর্ব লাদাখের গালওয়ান ঘাঁটিতে চিনা হানায় শহীদ হন ২০ জন ভারতীয় জওয়ান। এই ঘটনার পরেই ক্ষোভে ফেটে পরে সমগ্র ভারতবাসী। দাবি ওঠে বদলা নেওয়ার। কিন্তু তারপরেই গালওয়ান ঘাঁটিকে ‘চিনের সম্পত্তি’ বলে দাবি করে বেজিং। এই নিয়েই গত প্রায় ৪ দশক পরে ফের কেঁপে উঠেছে পূর্ব লাদাখের গালওয়ান ঘাঁটি।

Back to top button